মেক্সিকোয় মায়া সভ্যতার ২ শহরের সন্ধান

image

মেক্সিকোর ক্যাপেচে প্রাচীন মায়া সভ্যতার দুটি শহরের সন্ধান পেয়েছেন প্রত্নতাত্ত্বিকরা। ঘন বন-জঙ্গলের কারণে এত দিন শহরগুলোর স্থান নির্ণয় করা যায়নি। শহর দুটির নাম লাগুনিটা ও ট্যামচেন। ১৯৭০ সালে প্রথম শহর দুটির অস্তিত্বের কথা জানিয়েছিলেন প্রত্নতাত্ত্বিক এরিক ভন ইও। কিন্তু সে সময় তিনি শহর দুটির স্থান চিহ্নিত করতে পারেননি। সম্প্রতি এটা সম্ভব হয়েছে। খবর নিউজ ডটকম।

মেক্সিকোর দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ওই জঙ্গলে প্রাচীন এ সভ্যতার নিদর্শন খুঁজতে গিয়ে প্রত্নতাত্ত্বিকদের বেশ বেগ পেতে হয়েছে। তবে বিভিন্ন নিদর্শন আবিষ্কারের পর তারা বেশ উল্লসিত হয়েছেন। এখানে পাওয়া গেছে পিরামিড, প্রাসাদ, নৈবেদ্য ও বিশাল প্রবেশদ্বারের ধ্বংসাবশেষ। প্রত্নতাত্ত্বিকরা এসব নিদর্শনের ভিডিওচিত্র ও ছবি তুলে এনেছেন। ফলে মায়া সভ্যতা সম্পর্কে বিশ্বের মানুষকে আরো পরিষ্কার ধারণা দেয়া সম্ভব হবে।

এ বিষয়ে গবেষক দলের সদস্য ও স্লোভেনিয়ান একাডেমি অব সায়েন্সেস অ্যান্ড আর্টসের গবেষণা কেন্দ্রের গবেষক ইভান স্পার্জক বলেন, উড়োজাহাজ থেকে ধারণ করা কিছু ছবির ওপর ভিত্তি করে সভ্যতাস্থলটির সন্ধান করতে হয়েছে, যা ছিল খুবই কঠিন।

স্পার্জকের নেতৃত্বাধীন গবেষক দল চাকতাম অঞ্চলের জঙ্গলে প্রাচীন এ শহরের ধ্বংসাবশেষ পায়। তিনি বলেন, ‘লাগুনিটার প্রত্নতাত্ত্বিক এলাকাটি ছিল খুবই অস্পষ্ট, চারদিক উঁচু-নিচু টিলার মতো। এলাকাটি ঘুরলে মনে হবে না যে, সেখানকার মাটির নিচে প্রাচীন সভ্যতার নিদর্শন লুকিয়ে আছে। স্পার্জক জঙ্গলের ওই স্থানের ভূগঠনে কিছুটা ভিন্নতা পরিলক্ষিত হওয়ায় আমরা সেখানে খোঁড়াখুঁড়ি করতে আগ্রহী হয়ে উঠি এবং লাগুনিটার সন্ধান পাই। শহরটির আয়তন তিন হাজার বর্গমিটার।’

শহরের প্রবেশদ্বারটি বিশালাকৃতির। সেখানে ২০ মিটার উচ্চতার একটি উপাসনালয় ও বলকোর্ট রয়েছে। পাথরের বেষ্টনী দিয়ে এটি আটকানো।