টিকে গেল ক্যালিফোর্নিয়া নীল তিমি

টিকে গেল ক্যালিফোর্নিয়া নীল তিমি

  টিকে গেল ক্যালিফোর্নিয়া নীল তিমি পৃথিবীর সবচেয়ে বড় প্রাণী কোনটি? নিশ্চয় বলবেন নীল তিমি। বিলুপ্তপ্রায় প্রাণীর তালিকায় নাম ওঠার কারণে আরেকটু হলে এ জবাবটা ভুল হতে যাচ্ছিল। তবে ক্যালফোর্নিয়া নীল তিমি সে আশঙ্কাকে হারিয়ে দিল।

গবেষকদের বিশ্বাস, বিখ্যাত ক্যালিফোর্নিয়া নীল তিমি সংখ্যার দিক থেকে একটি স্থিতির পর্যায়ে এসেছে। তিমিদের মধ্যে সংখ্যার দিক দিয়ে উন্নতির দিকে এগিয়ে যাওয়া একমাত্র প্রজাতি এটি, যা বিজ্ঞানীদের মাঝে নতুন আশাবাদের জন্ম দিয়েছে। এর মাধ্যমে মহাসাগরের নিজস্ব বাস্তুসংস্থানে ইতিবাচক প্রভাব পড়বে।

গবেষকদের হিসাবমতে, ২ হাজার২০০’র বেশি এ দৈত্যাকার প্রাণী এখন প্রশান্ত মহাসাগরের পূর্বাঞ্চলে টহল দিচ্ছে। তবে ওই অঞ্চলে জাহাজ চলাচলের আধিক্যের কারণে এখনও ঝুঁকিতে রয়েছে তিমি।

এ প্রজাতির তিমি লম্বায় ৩৩ মিটার ও ওজন ১৯০ টন পর্যন্ত হয়। এদের যুক্তরাষ্ট্রের তীরবর্তী অঞ্চলে খাবারের সন্ধানে পরিভ্রমণরত দেখা যায়। তবে আলস্কা থেকে কোস্টারিকা পর্যন্ত এদের দেখা মেলে।

ইউনিভার্সিটি অব ওয়াশিংটনের একদল গবেষক ‘মেরিন ম্যামাল সায়েন্স’ জার্নালে প্রকাশিত এক লেখায় এ সব তথ্য জানান। তারা জানান, ক্যালিফোর্নিয়ার নীল তিমি টিকে থাকার ৯৭ শতাংশ পর্যায়ে নিজেদের সংখ্যা উন্নীত করতে পেরেছে। এটি একটি ঐতিহাসিক ঘটনা। বিশেষ করে ক্রমবদ্ধমান দূষণ, গ্রিন হাউস প্রতিক্রিয়া ও চোরা শিকারের কারণে এ সব প্রাণী বিলুপ্ত হতে চলেছিল। গবেষক দলের অন্যতম সদস্য ড. টেভর ব্রাঞ্চ বলেন, এটি একটি আশ্চর্যজনক ঘটনা। তিনি মনে করেন, তিমি শিকারের বিরুদ্ধে সঠিক ব্যবস্থা গ্রহণ ও মনিটরিংয়ের কারণে এটি সম্ভব হয়েছে।

১৯৬৬ সালে বিশ্বজুড়ে তিমি শিকার নিষিদ্ধ হয়। কিন্তু এর আগে হর্পুনের আঘাতে এন্টার্কটিকায় প্রায় ৩ লাখ ৪৬ হাজার তিমি মারা যায়। অন্যদিকে ১৯০৫ থেকে ১৯৭১ সালের মধ্যে প্রশান্ত মহাসাগরে ৩ হাজার ৪০০’র মতো নীল তিমি ধরা হয়। তবে এটা বলাই বাহুল্য যে, চোরা শিকার থেমে থাকেনি। তিমি শিকারের অপবাদ সবচেয়ে বেশি রয়েছে সোভিয়েত রাশিয়ার কাঁধে।

দ্য রিপোর্ট