লীগ অব আমেরিকার ফোবানা-২০১৫ নিউইয়র্কে

লীগ অব আমেরিকার ফোবানা-২০১৫ নিউইয়র্কে

নিউইয়র্ক: ফোবানা ২০১৫ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে নিউইয়র্কে এবং তার আয়োজন করবে বাংলাদেশ লীগ অব আমেরিকা। ফোবানা ২০১৬ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে ওয়াশিংটন ডিসিতে, আয়োজন করবে বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব গ্রেটার ওয়াশিংটন ডিসি, বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব আমেরিকা ইনক-এর সাথে মিলে।

আগস্টের ৩১ তারিখে লস এঞ্জেলেসের বারব্যাঙ্ক মারিওটে অনুষ্ঠিত ফোবানার বাৎসরিক সভায় ভোটের মাধ্যমে নির্ধারিত হয় কোন শহরে অনুষ্ঠিত হবে ২০১৬ সালের ফোবানা সম্মেলন। এই নির্বাচনে ওয়াশিংটনের বৃহৎ দুটি সংগঠন বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব আমেরিকা, ইনক (বাআই) এবং বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব গ্রেটার ওয়াশিংটন ডিসি (বাগডিসি) যৌথভাবে দরখাস্ত করে। তবে ফোবানার নিয়ম অনুযায়ী মাত্র একটি সংগঠনের নাম উল্লেখ করতে হয়। সেই মোতাবেক শুধু বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব গ্রেটার ওয়াশিংটন ডিসি (বাগডিসি)র নাম দরখাস্তে উল্লে­খ করা হয়। সভায় সবার সম্মুখে বাগডিসির কর্মকর্তারা বলেন যে, যদি তারা নির্বাচনে জয়ী হন তবে তারা বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব আমেরিকা, ইনক (বাআই)-এর সাথে মিলে একযোগে কাজ করে ফোবানার জন্মস্থান ওয়াশিংটন এ আরেকটি মাইলফলক সম্মেলন উপহার দেবেন। এখানে উল্লেখ্য যে, সেখানে বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব আমেরিকা, ইঙ্ক (বাআই)-এর কর্মকর্তা ও উপস্থিত ছিলেন। এই দুটি সংগঠন ছাড়াও নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে ডালাস, টেক্সাস থেকে বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব নর্থ টেক্সাস (বান্ট) এবং ফ্লোরিডা থেকে বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব ফ্লোরিডা। নির্বাচনে বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব গ্রেটার ওয়াশিংটন ডিসি (বাগডিসি) বিপুল ভোটে জয়লাভ করে এবং সাথে সাথে অত্যন্ত আনন্দঘন পরিবেশে বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব নর্থ টেক্সাস (বান্ট) এবং বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব ফ্লোরিডার কর্মকর্তারা বাগডিসিকে অভিনন্দন জানান।

ফোবানা লস এঞ্জেলেস

শুক্রবার সন্ধ্যায় লস এঞ্জেলেসের বোরব্যাংক কনভেনশন সেন্টারে চারটি ধর্মগ্রন্থ থেকে পাঠের পর আমেরিকা, কানাডা ও বাংলাদেশের জাতীয় সঙ্গীতের মধ্য দিয়ে এ সম্মেলনের শুরু। আর এই উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন কংগ্রেসম্যান ব্রার্ড সারম্যান, কংগ্রেসওমেন জুডি চু, এটিএন বাংলার চেয়ারম্যান মাহফুজুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপদেষ্টা সৈয়দ মোদাচ্ছের আলীসহ বেশ কয়েকজন কাউন্সিলম্যান। কংগ্রেসম্যান ব্রার্ড সারম্যান ও কংগ্রেসওমেন জুডি চু বলেন, বাংলাদেশী আমেরিকানরা একদিকে যেমন আমেরিকার বিভিন্ন খাতের উন্নয়নে অনন্য অবদান রাখছে, ঠিক তেমনি ফোবানা সম্মেলন সেতুবন্ধন তৈরি করে দিচ্ছে ওয়াশিংটন এবং ঢাকার মধ্যে। যা সামনের দিনগুলোতে আরও বাড়বে বলে আশাবাদী এই দুই কংগ্রেসম্যান। প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা সৈয়দ মোদাচ্ছের আলী মনে করেন, প্রবাসী বাংলাদেশীরা মূলধারায় আরও বেশি সম্পৃক্ত হতে পারলে নিজেদের পাশাপাশি দেশের জন্য কল্যাণকর হবে। তবে এর জন্য ফোবানার মতো প্ল্যাটফর্মের প্রয়োজনীয়তার কথা তুলে ধরে এটিএন বাংলার চেয়ারম্যান মাহফুজুর রহমান বলেন, মতৈক্য এবং রাজনীতির বাইরে রাখতে পারলেই ফোবানা হয়ে উঠতে পারবে বাংলাদেশী আমেরিকান তথা বাংলাদেশের প্রতিচ্ছবি। এসব অতিথিদের বক্তব্যের পর পরই মঞ্চে আসেন ফোবানার হোস্ট ও এক্সিকিউটিভ কমিটির নেতারা। এরপর শুরু হয় বর্ণাঢ্য সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। যাতে অংশ নিয়েছেন স্থানীয় ও অতিথি শিল্পীরা।

ফিলাডেলফিয়ায় এনএবিসি

পেনসিলভেনিয়ার ফিলাডেলফিয়ায় নর্থ আমেরিকা বাংলাদেশ সম্মেলন (এনএবিসি) গত শনিবার উদ্বোধন করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার দক্ষিণ এশিয়ান প্যাসিফিক আইল্যান্ড উপদেষ্টা ড. নীনা আহমেদ। এসময় নীনা আহমেদ বলেন, আমেরিকান স্বপ্নপূরণের পাশাপাশি প্রিয় মাতৃভূমির সার্বিক কল্যাণের স্বার্থে সব প্রবাসীকে দলমতের ঊর্ধ্বে উঠতে হবে। সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। ঐক্যবদ্ধ হওয়ার ব্যাপারটি অত্যন্ত জটিল এবং কঠিন হলেও সেটি ঘটাতে হবে। পেনসিলভেনিয়া রাজ্যের ফিলাডেলফিয়া সিটির উপকণ্ঠে ফিলাডেলফিয়া এক্সপো সেন্টারের বিশাল অডিটরিয়ামে এনএবিসির (নর্থ আমেরিকা বাংলাদেশ কনভেনশন) দুদিনব্যাপী ২৮তম বাংলাদেশ সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ড. নীনা আরও বলেন, আমেরিকায় জন্মগ্রহণকারী প্রজন্মে বাংলা ভাষা ও সংস্কৃতির বিকাশের স্বার্থেই প্রথম প্রজন্মকে অনেক উদার হতে হবে। শনিবার বিকেলে এক্সপো সেন্টারের গেটে বেলুন উড়িয়ে বাংলাদেশ সম্মেলনের বর্ণাঢ্য এ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন এনএবিসির চেয়ারম্যান নাহিদ নজরুল, সদস্য সচিব মোহাম্মদ জামান, নির্বাহী কমিটির সদস্য সাঈদ উর-রব, সম্মেলনের কনভেনর কাজী মতিউর রহমান এবং প্রধান সমন্বয়কারী ড. ইবরুল চৌধুরী। এ সময় কানাডা ও আমেরিকার বিভিন্ন রাজ্য থেকে আগত প্রতিনিধিরা বাংলাদেশ, আমেরিকা এবং কানাডার জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন করেন। এ সম্মেলনের বিভিন্ন পর্বে বাংলাদেশের উন্নয়ন-অগ্রগতির পাশাপাশি প্রবাসে বাংলা সংস্কৃতি বিকাশের সংকল্প ব্যক্ত করা হয়। অনুষ্ঠানে অতিথি বক্তা হিসেবে আরও বক্তব্য দেন বিল ক্লিনটনের মেয়ে চেলসি ক্লিনটনের শাশুড়ি রাজনীতিক-সমাজকর্মী মারজোরি মেজভিস্কি। তিনি নারী ক্ষমতায়নের মাধ্যমে গোটা বিশ্বকে তুলে ধরেন। বাংলাদেশের মৎস্য সম্পদ সংরক্ষণের প্রয়োজনীয়তা, কমিউনিটিকে এগিয়ে নিতে মিডিয়ার ভূমিকা এবং মূলধারায় সম্পৃক্ত হওয়ার প্রয়োজনীয়তা শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে কণ্ঠশিল্পী সাবিনা ইয়াসমিন, কাদেরী কিবরিয়া, ফকির আলমগীর, জাহিদুল রিপন প্রমুখ সঙ্গীত পরিবেশন করেন।

উল্লেখ্য, উত্তর আমেরিকায় বসবাসরত বাংলাদেশীদের ঐক্যবদ্ধ করার লক্ষ্যে ২৭ বছর আগে গঠিত হয়েছিল ফেডারেশন অব বাংলাদেশী এসোসিয়েশনস ইন নর্থ আমেরিকা (ফোবানা)। নেতৃত্বের দ্বন্দ্ব ও নানা কেলেঙ্কারি নিয়ে মতৈক্যের ফলে এই ফোবানা ভিন্ন নামে ৩-৪টি সংগঠনে রূপান্তরিত হয়েছে। আসল ফোবানার অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া দুষ্কর হয়ে পড়েছে।

এদিকে ইউএনএ জানায়, আগামী বছরও বিভক্তির ফোবানা সম্মেলন হচ্ছে। আগামী বছর অর্থাৎ ২০১৫ সালের ২৯তম ফোবানা বাংলাদেশ সম্মেলন ওয়াশিংটন ডিসিতে এবং লস এঞ্জেলেস সম্মেলন থেকে নিউইয়র্কে সম্মেলন করার কথা ঘোষণা দেয়া হয়েছে।

নিউইয়র্ক ফোবানা সম্মেলনের আয়োজক সংগঠন বাংলাদেশ ফোরাম অব নর্থ আমেরিকা ইনক-এর সভাপতি আতিকুর রহমান ইউসুফজাই সালু ৩১ আগস্ট রোববার রাতে ইউএনএ প্রতিনিধিকে জানান, নিউইয়র্ক ফোবানা সম্মেলনের পক্ষ থেকে আগামী বছর ওয়াশিংটন ডিসিতে পরবর্তী অর্থাৎ ২৯তম ফোবানা বাংলাদেশ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। এই সম্মেলনের স্বাগতিক সংগঠন হচ্ছে বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব গ্রেটার ওয়াশিংটন ডিসি।

অপরদিকে লস এঞ্জেলেস ফোবানা সম্মেলনের কো-কনভেনর সামসুল ইসলাম মজনু ইউএন প্রতিনিধিকে জানান, এই সম্মেলন থেকে ২০১৫ সালের ২৯তম ফোবানা বাংলাদেশ সম্মেলন নিউইয়র্কে আয়োজন করার কথা ঘোষণা দেয়া হয়েছে। এই সম্মেলনের স্বাগতিক সংগঠন হচ্ছে লীগ অব আমেরিকা। একই সাথে ২০১৬ সালে অনুষ্ঠিতব্য ৩০তম ফোবানা বাংলাদেশ সম্মেলনের ভেন্যু নির্ধারণ করা হয়েছে ওয়াশিংটন ডিসি। সম্মেলনে ফোবানা কর্মকর্তাদের ভোটাভুটিতে এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।