সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির নির্বাচন: বিশ্লেষকমহলের প্রতিক্রিয়া

image

১৭ মার্চ : বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্ট আইনজীবী সমিতির ২০১৫-১৬ বর্ষের কার্যকরী কমিটির নির্বাচনে এবারও বিএনপি-জামায়াত সমর্থিত জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য পরিষদ সভাপতি-সম্পাদকসহ সংখ্যাগরিষ্ঠ পদে জয়লাভ করেছে।

এবারের নির্বাচনে ১৪টি পদের মধ্যে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য পরিষদ নীল প্যানেল  ৯টি এবং সাদা প্যানেল ৫টি পদে বিজয়ী হয়েছে।

রাতভর ভোট গণনা শেষে আজ (মঙ্গলবার) সকালে নির্বাচন পরিচালনা উপ-কমিটির প্রধান নির্বাচন কমিশনার অ্যাডভোকেট হারুণ উর রশিদ বিজয়ীদের নাম প্রকাশ করে ফলাফল ঘোষণা করেন।

ফলাফলে বিএনপি-জামায়াতের নীল প্যানেলের সভাপতি প্রার্থী খন্দকার মাহবুব হোসেন ১৮০৬ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী সমর্থিত সম্মিলিত আইনজীবী পরিষদের সাদা প্যানেলভুক্ত প্রার্থী ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন পেয়েছেন ১৬২৭ ভোট।

এ ছাড়া সম্পাদক পদে নীল প্যানেলের ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন ১৯৩৭ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী সাদা প্যানেলের মোমতাজ উদ্দিন মেহেদী পেয়েছেন ১৫২৯ ভোট।

এদিকে, সহ-সভাপতি হিসেবে নীল প্যানেলের প্রার্থী এএসএম মোক্তার কবির খান ১৬৯৬ ভোট এবং সাদা প্যানেলের প্রার্থী আবুল খায়ের ১৭১১ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। কোষাধ্যক্ষ পদে ১৮৫২ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন নীল প্যানেলের শওকত আরা বেগম দুলালী।

 দুটি সহ-সম্পাদক পদের মধ্যে নীল প্যানেলের প্রার্থী মাজেদুল ইসলাম পাটোয়ারী উজ্জ্বল এবং সাদা প্যানেলের প্রার্থী মো.দেলওয়ার মোস্তফা চৌধুরী নির্বাচিত হয়েছেন।

সাতটি সদস্য পদের মধ্যে নীল প্যানেলের চারজন বিজয়ী হলেন-শামীমা সুলতানা দীপ্তি (২০৪৯) আনোয়ারুল ইসলাম শাহীন (১৮৩৯), মির্জা আল মাহমুদ (১৭৬৫)  ও জসিম সরকার (১৬৩৮)।

বাংলাদেশ সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে জাতীয়তাবাদী প্যানেলের পরপর দুবার বিপুল বিজয় লাভ করা প্রসঙ্গে সুপ্রীম কোর্ট ল’ রিপোর্টার্স ফোরামের সাবেক সভাপতি জনাব ফারুক কাজী ব্যাখ্যা করে বলেন,২০১০ সাল থেকে সরকারী দল সুপ্রীম কোর্ট আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে হেরে যাচ্ছে।

কারন, আদালত বা সরকারী দপ্তরে তালিকাভূক্ত থেকে কিছু আইনজীবী সরকারি সুযোগ সুবিধা ভোগ করলেও বেশীরভাগই সুবিধা বঞ্চিত থেকে যায়  এবং এ কারণে অন্তর্দ্বন্দ্বও লেগে থাকে।  

সুপ্রীমকোর্ট বারে জাতীয়তাবাদী প্যানেলের বিজয়কে বর্তমান অগণতান্ত্রিক সরকারের প্রতি দেশের সচেতন জনগোষ্ঠীর একটি নীরব প্রতিবাদ ও সার্বিক আনাস্থা হিসেবে ব্যাখ্যা করেন ঢাকা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট মাসুদ আহমেদ তালুকদার।

তিনি আশা করেন, সরকার এ নির্বাচন থেকে শিক্ষা নেবে  এবং দেশে একটি সুষ্ঠ নির্বাচন দিয়ে গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা ফিরিয়ে আনবে।

বাংলাদেশ সুপ্রীমকোর্ট আইজীবী সমিতির দুই দিনের নির্বাচনে রোব ও সোমবার সর্বমোট ৩৫২৯ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন। প্রথম দিনেভোট পড়েছিল ১৮০৪টি । সুপ্রীম কোর্ট বারের এবারের নির্বাচনে মোট ভোটার ছিলেন ৪ হাজার ৩৬২ জন। এদের মধ্যে ৮১ শতাংশ ভোটারই তাদের ভোট দিয়েছেন।

রেডিও তেহরান/১৭