আসছে মহাভূমিকম্প, মারা পড়বে ৪ কোটি মানুষ!

আসছে মহাভূমিকম্প, মারা পড়বে ৪ কোটি মানুষ!আসছে মহাভূমিকম্প, মারা পড়বে ৪ কোটি মানুষ!

অপেক্ষা করছে এক মহাভূমিকম্প, যার কারণে মারা পড়তে পারেন বিশ্বের চার কোটি মানুষ! অবিশ্বাস্য মনে হচ্ছে তো? এতবড় প্রাকৃতিক দুর্যোগ যে এ অবধি দেখেনি বিশ্ব।

বৃটিশ দৈনিক সানডে এক্সপ্রেস জানিয়েছে, ওই ভূমিকম্পে উত্তর ও দক্ষিণ আমেরিকা- দু’টো মহাদেশই ‘ভেঙে’ আলাদা হয়ে যেতে পারে, ভূমিকম্পে সৃষ্ট সুনামির কারণে আমেরিকা ও এশিয়া মহাদেশের বিপুলসংখ্যক মানুষের মৃত্যুর সম্ভাবনা রয়েছে এবং ভূমিকম্পটি আসন্ন।

ইউনিভার্সিটি অব লন্ডন থেকে উচ্চ শিক্ষা সম্পন্ন করা ইরানী বংশোদ্ভূত পরমাণু বিজ্ঞানী ড. মেহরান কেশের এক গবেষণায় উঠে এসেছে এসব তথ্য। গত মাসে ধারণকৃত এক ইউটিউব ভিডিওতে তিনি বলছেন, ওই ভূমিকম্পে শুধু যুক্তরাষ্ট্রের পশ্চিম উপকূলেই দুই কোটি মানুষের মৃত্যু হতে পারে।

মেহরান কেশের এই দাবির কোনো বৈজ্ঞানিক ভিত্তি বা আনুষ্ঠানিক সত্যতা নেই। তবে যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়া অঙ্গরাজ্যে কর্মকর্তাদের ধারণা, আগামী ৩০ বছরে অঞ্চলটিতে একটি বড় ভূমিকম্পের সম্ভাবনা রয়েছে ৯৯ শতাংশ, যার সম্ভাব্য মাত্রা সাড়ে ছয়।

আর ড. কেশের গবেষণা বলছে, আসন্ন মহাভূমিকম্প আগামী এক বছরের মধ্যে ঘটতে পারে। গত মাসে আমেরিকা মহাদেশীয় অঞ্চলে ধারাবাহিকভাবে ছয় থেকে ৮.৩-এর মধ্যে যে বেশ কয়েকটি ভূমিকম্প অনুভূত হয়েছে, সেগুলোর আসন্ন মহাভূমিকম্পেরই লক্ষণ- এমনটাও দাবি করেছেন তিনি।

আগামী কয়েক মাসের মধ্যে উত্তর চীনে বড় ধরনের কয়েকটি ভূমিকম্প হতে পারে বলেও মনে করেন তিনি।

তার ধারণা, বিশালাকার সুনামির ফলে মহাদুর্যোগে ধ্বংস হয়ে যাবে মেক্সিকো ও মেক্সিকান উপসাগরীয় অঞ্চল।

আরেক বৃটিশ দৈনিক ডেইলি স্টারের এক প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, মূলত দক্ষিণ আমেরিকা অঞ্চলে আঘাত হানবে ভূমিকম্পটি এবং এর সম্ভাব্য মাত্রা হতে পারে ২০ থেকে ২৪। এছাড়াও ওই ভূমিকম্পে মধ্য আমেরিকার মানুষজন বাঁচার কোনো সুযোগই পাবে না, এমনটাও ধারণা কেশের।

সবশেষে ভেবে দেখার মতো আরো একটি কথা যোগ করেছেন কেশে, আর তা হলো এই যে- ভূমিকম্পটি বিশ্বে শান্তি এনে দেবে!

তার দাবি- ‘ভূমিকম্পের ধ্বংসযজ্ঞ এতটাই ভয়াবহ হবে যা বিশ্ব আগে কখনো দেখেনি। গোটা বিশ্বের অর্থনীতি ধ্বংস হয়ে যাবে, ভেঙে পড়বে ব্যাংকিং ব্যবস্থা।’