বন্যাদুর্গত এলাকায় লস এঞ্জেলেসের আনন্দ মেলা কমিটির ত্রাণ তৎপরতা

বন্যাদুর্গত এলাকায় লস এঞ্জেলেসের আনন্দ মেলা কমিটির ত্রাণ তৎপরতা:
সম্প্রতি দেশে ঘটে যাওয়া ভয়াবহ বন্যায় দেশের বিস্তীর্ন অঞ্চলের অজস্র মানুষ বিপন্ন হয়ে পড়ে।  সেই সব বিপন্ন মানুষের পাশে সরকারের গৃহীত নানা পদক্ষেপের পাশাপাশি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ও ব্যাক্তি পর্যায়ের নানা রকম সাহায্য অব্যাহত থাকে। সেইসব বেসরকারি প্রতিষ্ঠান, সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনের মত সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে লস এঞ্জেলসের বিনোদন মূলক অনুষ্ঠান আনন্দ মেলার আয়োজকবৃন্দও স্বতঃস্ফুর্তভাবে বন্যাদুর্গত সেইসব বিপন্ন মানুষের কল্যাণে হাত বাড়িয়ে দেয়। 
গত ১ সেপ্টেম্বর নাটোরের প্রত্যন্ত অঞ্চল সিংড়ায়
“আনন্দ মেলা” লস এঞ্জেলেসের উদ্যোগে এবং স্থানীয় সংগঠন বুনো পায়রা ও বাংলাদেশ কমেডী ক্লাবের সহযোগিতায় মিরাক্কেল চ্যাম্পিয়ন আবু হেনা রনির একান্ত প্রচেষ্টায় উপজেলার বিভিন্ন এলাকার বানভাসিদের মাঝে ত্রাণসামগ্রী ও ঈদ উপকরণ সহ শিশুদের নতুন পোষাক এবং নগদ অর্থ প্রদান করা হয়।
কমেডিয়ান আবু হেনা রনি বন্যাদুর্গতদের মাঝে নিজ হাতে ত্রাণ বিতরণ করেন। স্বেচ্ছাসেবী হিসেবে ছিলেন জাকির হোসেন সহ নাটোর কমেডি ক্লাব এর সকল সদস্য।  আবু হেনা রনি বলেন,  মানুষের মুখে হাসি ফুটাতেই তার এই সামান্য প্রচেষ্টা । ঈদের মুখে এই ত্রাণ তৎপরতা বিধায় শিশুদের নতুন পোশাকসহ কিছু ঈদ উপকরণও ছিল ত্রাণসামগ্রীর মধ্যে। প্রায় দেড়শ টি পরিবারের মধ্যে চাল, ডাল, সেমাই, চিনি, গুড়া দুধ ও স্যালাইনের সমন্বয়ে তৈরী প্যাকেট সরবরাহ করা হয়। গুরুত্বনুযায়ী কিছু পরিবারের মাঝে নগদ অর্থও বিতরণ করা হয়।
 
এছাড়াও আনন্দমেলা কর্তৃপক্ষ সাম্প্রতিক বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থদের জন্যে বিভিন্ন সংগঠনের উদ্যোগে গঠিত তহবিলে অনুদান দিয়ে দেশের বন্যার্তদের বহুমুখী সেবা করেছে বলে সংগঠনের প্রধান সমন্বয়কারী খান মোহাম্মদ আলী জানান। পাশাপাশি এই সামাজিক ও সাংস্কৃতিক কর্মকান্ড একইসাথে চলবে বলেই তিনি জানান। আনন্দমেলা কর্তৃপক্ষের এই জনকল্যাণমূলক কার্যক্রম লস এঞ্জেলেস প্রবাসী বাংলাদেশি কম্যুনিটিতে ব্যাপক প্রশংসিত হয়েছে। 
উল্লেখ্য কমেডিয়ান আবু হেনা রনি কিছুদিন পূর্বে লস এঞ্জেলেসের আনন্দমেলায় অনবদ্য পরিবেশনা করে লস এঞ্জেলেসবাসীদের মাতিয়ে যান।