১৮ বছর পর সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি নির্বাচিত হলেন এক বঙ্গনারী।

১৮ বছর পর সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি নির্বাচিত হলেন এক বঙ্গনারী। রুমা পালের পর ভারতের ইতিহাসে ইন্দিরা বন্দ্যোপাধ্যায়ই দ্বিতীয় মহিলা হিসাবে সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতির পদে উন্নীত হলেন। এই নিয়োগের ফলে একই সঙ্গে সুপ্রিমকোর্টের অষ্টম মহিলা বিচারপতিও হলেন ইন্দিরা দেবী। মঙ্গলবার রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ তাঁকে শপথ বাক্য পাঠ করিয়েছেন। অনুজের এই চূড়ান্ত সাফল্যে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন অগ্রজ। জানুয়ারি’২০০০ থেকে জুন’২০০৬ পর্যন্ত সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি হিসাবে দায়িত্ব থাকা রুমা পাল টাইমস অফ ইন্ডিয়া-কে জানিয়েছেন, “আমি ভীষণ খুশি এবং গর্বিত বোধ করছি। তিনি যে অত্যন্ত ভালো বিচারপতি সে কথা আমি জানি। সুপ্রিম কোর্টে তিনি আসামান্য কাজ করবেন”। ১৯৮৫ সালে কলকাতা হাইকোর্টে আইনজীবী হিসাবে কাজ শুরু করেন ইন্দিরা বন্দ্যোপাধ্যায়। এরপর ২ ফেব্রুয়ারি’২০০২ কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি পদে নিযুক্ত হন তিনি। দীর্ঘকাল কলকাতা হাইকোর্টে কাজ করার পর ৫এপ্রিল’২০১৭ থেকে মাদ্রাজ হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি পদে আসীন হন ইন্দিরা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই পদ থেকেই মঙ্গলবার সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি পদে উন্নীত হলেন বিচারপতি বন্দ্যোপাধ্যায়। জুনিয়ারের এমন তাক লাগানো সাফল্যে উচ্ছ্বসিত ইন্দিরা বন্দ্যোপাধ্যায়ের একদা সিনিয়র তথা প্রবীণ আইনজীবী সৌমাদিত্য পাল। আইনজীবী পাল বলেন, “এক সময় তিনি আইনজীবী হিসাবে কলকাতা হাইকোর্টে আমার অধীনে কাজ করতেন বলে পরবর্তী কালে আমি কখনও তাঁর এজলাসে মামলা লড়িনি। কিন্তু, আমি আমি জানি, তিনি অত্যন্ত মেধাবী এবং আইনের সব দিক খতিয়েই পরবর্তীকালে বিচার করবেন”। সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি পদে ইন্দিরা বন্দ্যোপাধ্যায়ের যোগদানের বিষয়ে প্রাক্তন কোন্দ্রীয় মন্ত্রী তথা প্রবীণ আইনজীবী এস বি মুখার্জী বলেন, “তিনি দীর্ঘদিন এই পদের দাবিদার ছিলেন। তাঁর নিয়োগের ফলে দীর্ঘ ৪ বছর পর সুপ্রিম কোর্টে কলকাতার প্রতিনিধিত্ব ফিরে এল”। ফেব্রুয়ারি থেকে এপ্রিল পর্যন্ত কলকাতা হাইকোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশন যে কর্মবিরতি পালন করার পিছনে অন্যতম দাবি ছিল কলকাতার প্রতিনিধিত্ব ফিরিয়ে নিয়ে আসা। ফলে, ইন্দিরা দেবীর এই নিয়োগে নিজেদের সাফল্যই দেখছেন কলকাতা হাইকোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশন-এর সভাপতি উত্তম মজুমদার।