আদর্শ প্রেমিক হতে চাইলে এগুলো অবশ্যই মেনে চলুন!

সঙ্গী সম্বন্ধে বোঝার ধারণা যখন থেকে হয়, তখন থেকে প্রত্যেকটি মেয়েই নিজের মনে সঙ্গীর একটি প্রতিচ্ছবি তৈরি করে থাকেন,খুঁজতে থাকেন নিজের মনের মত গুণ সম্পন্ন ভালোবাসার মানুষটি। জেনে নিন কোন গুণগুলি থাকেল মেয়েদের চোখে আপনি হয়ে উঠতে পারেন আদর্শ প্রেমিক!

১. তিনটি ম্যাজিক্যাল শব্দ..
আই লাভ ইউ.. এই বিশেষ শব্দের প্রতি প্রতিটি মেয়ের আলাদা একটি দুর্বলতা থাকে । তাই সুযোগ পেলেই আপনার সঙ্গীনিকে বলুন “আই লাভ ইউ” ।

২. ভালোবাসার বিশেষ দিনগুলি আপনাকে অবশ্যই মনে রাখতে হবে। সেই সাথে এই বিশেষ দিনগুলিতে সারপ্রাইজ গিফট্ দিতে পারেন যা আপনার সঙ্গীনিকে খুশি করে তুলবে।

৩. দোষ করলে তা স্বীকার করে নিন। এটা একটা ভালো গুন । সঙ্গীর কাছে দোষ স্বীকারে কোন লজ্জা নেই, বরং তা সম্পর্ককে আরও মজবুত করে ।

৪. প্রেমিকার সঙ্গে শপিংয়ে বেরোন। মাঝে মাঝে ডিনার করতেও বের হোতে পারেন, পার্ক বা সিনেমায় যান । এগুলো সম্পর্ককে আরো মধুর করে ।

৫. প্রেমিকার পছন্দের জিনিস তাঁকে উপহার দিন। বিশেষ করে মেয়েরা কসমেটিকস্,ড্রেস এগুলো বেশি পছন্দ করে । তাই আপনার সাধ্যের মদ্ধ্যে যতটুকু পারা সম্ভব প্রেমিকাকে উপহার দিন ।

৬. একটি মেয়ে সব সময় চান তার সঙ্গী তাকে যে কোনো ধরণের খারাপ কিছু থেকে রক্ষা করার ক্ষমতা রাখুক। এবং মুখে না বললেও প্রতিটি মেয়েই আশা করেন তার সঙ্গীর কাছে সকল সমস্যার সমাধান থাকবে, যেমনটা থাকে কোন সুপার হিরোর।

৭. ব্যস্ততার মধ্যে প্রেমিকার ফোন এলে তা এড়িয়ে না গিয়ে ধরে নিন। এক মিনিট হলেও কথা বলুন কিন্তু ফোন এড়িয়ে যাবেন না । এতে সঙ্গীনির মনে সন্দেহ জাগতে পারে , আপনি কোথায় আছেন – কার সঙ্গে আছেন ।

8.বড় ধরনের কিছু নয় কিন্তু সকল মেয়েই চান তার সঙ্গী তার জন্য সারপ্রাইজ প্লান করুক।বড় কিছু গিফট নয় ছোটো একটি চকলেট কিংবা একটি ভালোবাসাপূর্ন এসএমএস।এতেই সম্পর্ক হবে আরও গভীর।

৯.গোপন বিষয় এড়িয়ে না গিয়ে তা ভাগ করে নিন।এতে দুজনের মধ্যে বোঝাপড়া আরও মজবুত হবে।

১০.কখনো কখনো বন্ধুদের সঙ্গে আউটিংয়েও সঙ্গী করুন প্রেমিকাকে।এতে করে দুজন দুজনার কাছে সুযোগ পাবেন আরও বেশি।