গুগল প্রত্যাখ্যান করল বলেই ফ্লিপকার্টের জন্ম: বিন্নি বনসল

0
29

গুগল প্রত্যাখ্যান করল বলেই

ফ্লিপকার্টের জন্ম: বিন্নি বনসল সালটা ২০০৭। বছর ২৪-এর এক যুবক চাকরি ছেড়ে নিজের মতো করে কিছু একটা করার চিন্তাভাবনা করছেন। তখনও এ দেশে স্টার্টআপ শব্দটি পরিচিতি পায়নি। পাকা চাকরি ছেড়ে নিজের সংস্থা! এ তো আগুনে ঝাঁপ দেওয়ার সমান। সেই বছরই আরেকজনকে সঙ্গী করে তিনি একটি সংস্থা তৈরি করেছিলেন। নাম দিয়েছিলেন ফ্লিপকার্ট। বাকিটা ইতিহাস।

সম্প্রতি বেঙ্গালুরুতে একটি অনুষ্ঠানে সংস্থা তৈরির পেছনের গল্প বলতে শোনা গেল ফ্লিপকার্টের সহ প্রতিষ্ঠাতা বিন্নি বনসলকে। চণ্ডীগড়ের ছেলে বিন্নির পড়াশোনার থেকে খেলাধুলোতেই বেশি ঝোঁক ছিল। যার প্রভাব পড়ত পরীক্ষার ফলে। তবে পাকেচক্রে আই আই টি দিল্লিতে সুযোগ চলে আসে। সেখান থেকেই বদলে যায় জীবন। বিন্নিকে প্রশ্ন করা হয়েছিল, ফ্লিপকার্টের জন্ম হল কেমন করে? কালক্ষেপ না করে উত্তর দিলেন, ‘গুগলে চাকরির জন্য দু’বার আবেদন করেছিলাম। দু’বারই প্রত্যাখ্যাত হই। ফ্লিপকার্ট তৈরির পেছনে এটাই কারণ’। বিন্নি আরও বললেন, ‘বেঙ্গালুরুতে প্রথমে একটি সংস্থায় কিছু দিন কাজ করি। তারপর ফ্লিপকার্টের সহ প্রতিষ্ঠাতা শচীন বনসলের দৌলতে অ্যামাজনে চাকরি নিই।’ আট মাসের মাথায় সেটাও ছেড়ে দিয়েছিলেন বিন্নি। তার আগেই অবশ্য নতুন সংস্থা তৈরির পরিকল্পনা ছকে ফেলেছেন তিনি। বিন্নির কথায়, ‘এম এন সিতে মাস মাইনের চাকরি সত্যিই সুখের। কিন্তু আমি বোর হয়ে গিয়েছিলাম। নতুন কিছু করতে হবে ভাবছিলাম। আমার লক্ষ্য ছিল, সঞ্চয়ের পরিমাণটা এমন থাকবে বছর দেড়েক যদি আয় না করতে পারি তাও যেন চলে যায়।’ ৪-৫ লক্ষ টাকা সম্পদ নিয়ে শচীন বনসলের সঙ্গে তিনি তৈরি করেছিলেন ফ্লিপকার্ট। দেশের অনলাইন শপিংয়ের ইতিহাসে যা পাকাপাকিভাবে স্থান করে ফেলেছে। ১১ বছর পেরিয়ে ফ্লিপকার্ট এখন অপ্রতিরোধ্য। ইতিমধ্যেই সংস্থার ৭৭ শতাংশ শেয়ার অধিগ্রহণের ঘোষণা করেছে মার্কিন বহুজাতিক সংস্থা ওয়ালমার্ট। এই পরিস্থিতিতে ফ্লিপকার্ট কর্তার কাছে এখন সবথেকে বড় সমস্যা কোনটা? বিন্নির উত্তর, ‘ফ্লিপকার্টে এখন সবজি ও ফল বিক্রি শুরু হয়েছে। কিন্তু আমার স্ত্রী এখনও বিগ বাস্কেট থেকেই অর্ডার করেন। বোঝানোর চেষ্টা করছি, কিন্তু এখনও সফল হইনি’।