বাংলাদেশের জনগন কি এখনও সিদ্ধান্ত গ্রহন করবার ক্ষমতা রাখে?

বাংলাদেশের জনগন কি এখনও সিদ্ধান্ত গ্রহন করবার ক্ষমতা রাখে?https://www.facebook.com/696941622/posts/10155826988741623/

আওয়ামী লীগ চাইছিলো আগামী নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার করা হোক। নির্বাচন কমিশনও একরকম অনড় ছিলো কিছু অাসনে এই পদ্ধতি ব্যবহার করতে। তবে কমিশনের সবাই যে এই বিষয়ে একমত নন, তাতো আমাদের জানাই ছিলো। বিএনপি আর তার মিত্ররা শুরু থেকেই ইভিএম এর বিপক্ষে। বিএনপিকে পছন্দ করেননা এমন অনেকেরও আপত্তি আছে ইভিএম ব্যবহারে। তবে কয়েকদিন আগে প্রধানমন্ত্রী যখন যৌক্তিকভাবেই বললেন ইভিএম নিয়ে তাড়াহুড়োর কিছু নেই, কিছু জায়গায় পরীক্ষামূলকভাবে দেখা যেতে পারে – কার্যকর না হলে বাদ দেয়া যেতে পারে; তখনই নির্বাচন কমিশনের সুর নরম হয়ে এলো। এখন তারা বলছেন সরকার এবং রাজনৈতিক দলগুলোর ইচ্ছার ওপরই সব নির্ভর করবে। প্রধানমন্ত্রী অবশ্য এও বলেছেন তথ্য প্রযুক্তির এই সময়ে আমাদের নানা ক্ষেত্রে প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়াতেই হবে। সবাই নিজ নিজ অবস্থান থেকে কথা বলছেন, কিন্তু সাধারন মানুষ কি ভাবছেন? সেটি বোঝার জন্যই গত শুক্রবার বিকেল থেকে আজ বিকেল পর্যন্ত, পুরো এক সপ্তাহ অর্থাৎ ১৬৮ ঘন্টা ফেসবুকে আমার অ্যাকাউন্ট এবং পেইজ থেকে একটি জরিপ চালাই। জানতে চেয়েছিলাম, আপনি কি আগামী নির্বাচনে ইভিএম চান? জরিপে অংশ নিয়ে ভোট দিয়েছেন মোট ৫২১৪ জন। জনগন ইভিএম -এর বিপক্ষে এটা স্পষ্ট। ৪৩৭৮ জন বলেছেন তাঁরা ইভিএম চাননা, অর্থাৎ জরিপে অংশগ্রহনকারীদের ৮৩.৯৭% ইভিএম এর বিপক্ষে। তবে পক্ষেও মানুষ আছেন। শতকরা হিসেবে তাঁদের সংখ্যা ১৬.০৩ ভাগ। ইভিএম ব্যবহারের পক্ষে ভোট দিয়েছেন ৮৩৬ জন। শুধু পক্ষে বিপক্ষে ভোট দিয়েই সবাই ক্ষান্ত হননি, অনেকেই নানা মন্তব্য আর পরামর্শও রেখেছেন ওই ষ্ট্যাটাসগুলোতে। আপনি দেখতে চাইলে আমার টাইমলাইন বা ফেসবুক পেইজ ঘুরে আসতে পারেন। যারা গত সাতদিন লাইক দিয়ে আর শেয়ার করে এই জরিপকে জীবন্ত রেখেছেন তাদের ধন্যবাদ। তবে সব কথার শেষ কথা, বাংলাদেশের জনগন কি এখনও সিদ্ধান্ত গ্রহন করবার ক্ষমতা রাখে?