মেকআপের যে ভয়াবহ ভুলটি আপনার ত্বক নষ্ট করে দিচ্ছে

আপনি নিয়মিত মেকআপ করুন আর কদাচিৎ, কোনো না কোনো সময় তো নিশ্চয়ই মেকআপ না তুলেই ঘুমিয়ে পড়েছেন। এ ভুলটি কমবেশি সবাই করেন। ভুলে একবার দুবার মেকআপ নিয়ে ঘুমিয়ে পড়লে তেমন দোষের কিছু নেই। কিন্তু নিয়মিত আলসেমি করে মেকআপ নিয়ে ঘুমিয়ে পড়া অনেক বড় একটি ভুল। এতে স্থায়ীভাবে আপনার ত্বকের ক্ষতি হতে পারে। জেনে নিন মেকআপ না তুলে ঘুমালে কী কী ক্ষতি হতে পারে। এর পাশাপাশি জেনে রাখুন ঘুমানোর আগে মেকআপ তোলার সঠিক উপায়টি।

প্রথমত, মেকআপ আপনার ত্বকের রোমকূপ আটকে দেয়। মেকআপ নিয়েই ঘুমিয়ে পড়লে ত্বকের রোমকূপ বা পোর আটকে যায়, পোর বড় দেখা যায়, ব্রণ হয় এমনকি ব্রণের দাগ পড়ে যেতে পারে।

দ্বিতীয়ত, মেকআপ নিয়ে ঘুমালে সারাদিনের ময়লা ত্বকেই রয়ে যায়। মেকআপ ত্বকের ওপরে একটি তেলতেলে স্তর তৈরি করে যাতে ময়লা, ব্যাকটেরিয়া ও দূষণ আটকে থাকে। তা নিয়েই ঘুমিয়ে পড়লে ত্বকের কোষগুলো ঠিকমত কাজ করতে পারে না। এতে ব্রণের উপদ্রব বেশি হয়, ত্বক রুক্ষ এবং স্পর্শকাতর হয়ে পড়ে।

তৃতীয়ত, চোখের মেকআপ না তুললে চোখের সমস্যা দেখা দিতে পারে। আইলাইনার ও মাসকারা নিয়ে ঘুমালে চোখের পাপড়ি ও ভ্রূ পড়ে যেতে পারে। এমনকি মাসকারার কারণে চোখের পাতায় ছোট ছোট ফুসকুড়ি বা সিস্ট হতে পারে। চোখ চুলকানো, জ্বালাপোড়া এগুলো হওয়া তো স্বাভাবিক।

সবশেষে, শুধু লিপস্টিক ভালোভাবে না তুলে ঘুমাতে গেলেও সমস্যা হতে পারে। লিপস্টিকে থাকা উপাদানগুলো ঠোঁট শুকিয়ে ফেলে। ফলে সকালে উঠে আপনি দেখবেন ঠোঁট ফেটে চৌচির হয়ে আছে। আর লিপস্টিকের উপাদানগুলোর কারণে ঠোঁটের আশেপাশে ব্ল্যাকহেডস দেখা দিতে পারে।

উজ্জ্বল, নিখুঁত ত্বক চাইলে অবশ্যই রাত্রে মেকআপ তুলে তারপর ঘুমাতে হবে। দেখে নিন রাত্রে মেকআপ তুলে ত্বক পরিষ্কার করার কিছু টিপস-

১) প্রথমেই ত্বকে মেকআপ রিমুভার বা ক্লিনজার দিয়ে রাখুন ১৫ সেকেন্ড। এরপর মেকআপ ওয়াইপ বা সুতি কাপড় দিয়ে মুছে ফেলুন।

২) ত্বকে খুব জোরে ঘষাঘষি করবেন না বা রুক্ষ কাপড় ব্যবহার করবেন না। কটন ওয়াইপ ব্যবহার করতে পারেন।

৩) বেশি ভারী মেকআপ করা হলে এ পর্যায়ে কিছুটা স্টিম দিতে পারেন ত্বকে।

৪) চোখের মেকআপ পরিষ্কার করার ক্ষেত্রে বেশি সতর্ক থাকুন।

৫) ক্লিনজার এবং মেকআপ ওয়াইপ ছাড়াও অনেকে বেবি অয়েল ব্যবহার করে মেকআপ তোলেন। তেল ব্যবহারের পর অবশ্যই একটি তুলার বল বা প্যাড দিয়ে ত্বক থেকে এই তেল মুছে ফেলুন।

মেকআপ তুলে ফেলার পর ফেসওয়াশ দিয়ে মুছ ধুয়ে ফেলুন। এরপর নিজের পছন্দের টোনার, ময়েশ্চারাইজার এবং সিরাম ব্যবহার করুন। সকালেও আরেকবার মুখ ধুয়ে ফেলতে পারেন কোমল কোনো ক্লিনজার ব্যবহার করে।