নারায়ণগঞ্জ আইনজীবী সমিতির কার্যকরী কমিটির অভিষেক ও নতুন ডিজিটাল বার ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন

আদালত প্রাঙ্গনে নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির অভিষেক অনুষ্ঠানে বক্তব্য দিচ্ছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। ছবি: প্রিয়.কম

এস কে সিনহার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ তদন্ত করছে দুদক: আইনমন্ত্রী

‘দুদক এস কে সিনহার বিরুদ্ধে মামলা করলে সরকার তাতে হস্তক্ষেপ করবে না।’

 সাবেক প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার (এস কে) সিনহার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগের ব্যাপারে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) তদন্ত করছে বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।

২৩ সেপ্টেম্বর, রবিবার সন্ধ্যায় নারায়ণগঞ্জ আদালত প্রাঙ্গনে জেলা আইনজীবী সমিতির অভিষেক অনুষ্ঠান ও নতুন ডিজিটাল বার ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী এ কথা জানান।
আইনমন্ত্রী বলেন, ‘দুদক এস কে সিনহার বিরুদ্ধে মামলা করলে সরকার তাতে হস্তক্ষেপ করবে না।’

নারায়ণগঞ্জ আইনজীবী সমিতির কার্যকরী কমিটির অভিষেক ও নতুন ডিজিটাল বার ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন

রোববার (২৩ সেপ্টেম্বর ) বিকেলে নারায়ণগঞ্জ আইনজীবী সমিতির কার্যকরী কমিটির অভিষেক ও নতুন ডিজিটাল বার ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। তিনি নারায়ণগঞ্জের বিচারব্যবস্থার সুব্যবস্থার জন্য দুই কোর্ট একসাথে রাখা, বার ভবন নির্মানে জায়গা ও অর্থের যোগান, প্রসিকিউশনের জন্য কিছু সুসংবাদ দিয়ে গেছেন।

অনুষ্ঠানে দুই কোর্ট একসঙ্গে রাখা প্রসঙ্গে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, দুবছর আগে যখন এসেছিলাম তখন আপনারা জানিয়েছিলেন যে, সিজেএম কোর্ট ও জেলা জজ কোর্ট দুটি জায়গায় থাকলে আইনজীবী ও সাধারণ মানুষের অসুবিধা হচ্ছে। সড়ক দুর্ঘটনায় মানুষ নিহত হয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে এ সমস্যার সমাধানে সিজেএম কোর্টের জন্য আদালত পাড়ায় জায়গা দেখে গিয়েছি।

আমি নগরীতে তৈরী সিজেএম ভবনের ব্যাপারে পাওয়ার ডেভেলপমেন্ট বোর্ড (পিডিবি) অথবা ন্যাশনাল বোর্ড অব রেভিনিউ (এনবিআর) এর সাথে কথা বলেছি। ত্রিপাক্ষিক আলোচনার মাধ্যমে তাঁরা কথা দিয়েছে তারা আমাদের এ জায়গাটি দিয়ে দিবে সিজেএম কোর্ট করার জন্য।

সুতরাং আপনাদের সকলকে আশ্বস্ত করতে পারি, নির্বাচনের আগে এ পদক্ষেপ সম্পূর্ণ করা হবে। এ পদক্ষেপ নেয়া হলে জনগণ, আইনজীবী ও বিচার বিভাগের বিচারিক কাজ করতে অনেক সুবিধা হবে। এটি আমার প্রথম প্রায়োরিটি।

নতুন ডিজিটাল বার ভবনে নির্মাণের ব্যাপারে আইনমন্ত্রী বলেন, বার সভাপতিকে জিজ্ঞাসা করেছিলাম, বার ভবন নির্মার্ণের জন্য কত টাকা লাগবে? তিনি বলছেন সবসাকুল্যে ৫ কোটি টাকা লাগবে। সেলিম ওসমান বলে গেছেন এ ভবন নির্মার্ণের জন্য ৩ কোটি টাকা পর্যন্ত দিবেন।

আমি শরীক হবো ১ কোটি টাকা। গোলাম দস্তগীর গাজী আমাদের সাথে হাত মেলালে বাকি ১ কোটি টাকার যোগান নিশ্চিত হয়ে যায়। এমপি গোলাম দস্তগীর গাজী তখন উঠে বলেন, আপনি (মন্ত্রী) যখন বলেছেন কথা রাখবো।

প্রসিকিউশনের পিপি, জিপি, এপিপি, এজিপির সম্মানির বর্তমান হাল চলতে দেয়া হবে না উল্লেখ করে আইনমন্ত্রী বলেন, এব্যাপারে অর্থমন্ত্রীর সাথে এ ব্যাপারে আলাপ কর একটি প্রস্তাবনা তৈরী করা হয়েছে যাতে সকলের স্ট্রাকচার থাকবে। প্রায় প্রতিবছর ২৭০ কোটি লাগবে।

অর্থমন্ত্রী বলেছেন, তিনি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ নিয়ে বলেছেন প্রতিবছর এখাতে বরাদ্দ রাখার ব্যবস্থা করা হবে।

রোববার (২৩ সেপেম্বর) বিকেলে নারায়ণগঞ্জ আইনজীবী সমিতির কার্যকরী কমিটির অভিষেক ও নতুন ডিজিটাল বার ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট হাসান ফেরদৌস জুয়েল সভাপতিত্ব করেন।

বিএনপিকে শোকরানা নামাজের অনুরোধ শামীম ওসমানের

বিএনপিকে শোকরানা নামাজের অনুরোধ শামীম ওসমানের

সাবেক রাষ্ট্রপতি বদরুদ্দোজা চৌধুরী হাত বাড়িয়ে দেওয়ায় বিএনপি নেতাদের শোকরানা নামাজ আদায়ের অনুরোধ জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী নেতা ও এমপি একেএম শামীম ওসমান। তিনি বলেছেন, বিকল্পধারা নামে রাজনৈতিক দল প্রতিষ্ঠা করার অপরাধে বিএনপির হামলা থেকে সেদিন হোন্ডায় চড়ে তিনি পালাতে না পারলে আজ হয়তো বিএনপি তাকে পেত না। বিএনপি এখন সেই বদরুদ্দোজার হাত ধরে ওপরে উঠে আসার চেষ্টা করছে। তাই বিএনপির উচিত বেশি বেশি শোকরানা নামাজ আদায় করা।

জেলা আইনজীবী সমিতির অভিষেক অনুষ্ঠানে গতকাল রবিবার শামীম ওসমান এসব কথা বলেন।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে শামীম ওসমান এমপি বলেন, এ দেশের কিছু ‘ডক্টর-ফক্টর’ আছেন, যারা স্বপ্ন দেখছেন দেশে নতুন কিছু ঘটবে। এরা দেশের মাটিতে বসে বিদেশে ষড়যন্ত্র করছে, সরকার ও দেশের বিরুদ্ধে খেলতে চাচ্ছে। তাদের বিরুদ্ধে কেন মামলা হচ্ছে না এমন প্রশ্ন রেখে শামীম ওসমান বলেন, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এসব ষড়যন্ত্র সমূলে উৎপাটন করা হবে। এখন আবার বি. চৌধুরী তাদের মাঝে আশার আলো জাগিয়েছেন। কিন্তু ২০১৪ সালের মতো যদি জ্বালাও-পোড়াও করে এ দেশের মানুষের শান্তি ও জানমালের ক্ষতির চেষ্টা করা হয়, তবে জনগণকে সাথে নিয়েই সেই ষড়যন্ত্র রোধ করা হবে।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে সংসদ সদস্য শামীম ওসমান, সেলিম ওসমান, নজরুল ইসলাম বাবু, গোলাম দস্তগীর গাজী, সংরক্ষিত আসনের সাংসদ হোসনে আরা বাবলী, আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণলায়ের সচিব আবু সালেহ শেখ মো. জহিরুল হক, যুগ্ম সচিব (প্রশাসন-১) বিকাশ কুমার সাহা, জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ আনিসুর রহমান, জেলা প্রশাসক রাব্বী মিয়া, চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ফয়সল আতিক বিন কাদের, পুলিশ সুপার মো. আনিসুর রহমান  প্রমুখ। তবে জেলা বারের  বিএনপিপন্থি ১১ আইনজীবী ওই অনুষ্ঠান বর্জন করে অনুপস্থিত ছিলেন বলে জানা গেছে।