যুক্তরাষ্ট্রে অনুপ্রবেশকারী ভারতীয়দের সংখ্যা বাড়ছে

যুক্তরাষ্ট্রে অবৈধভাবে প্রবেশের অপরাধে গ্রেফতারকৃত ভারতীয় নাগরিকের সংখ্যা চলতি বছর তিন গুণ বেড়েছে। যুক্তরাষ্ট্রে আটক হওয়া সর্বোচ্চসংখ্যক অবৈধ বিদেশী নাগরিকদের মধ্যে ভারতীয়রা অন্যতম। যুক্তরাষ্ট্রের কাস্টমস অ্যান্ড বর্ডার প্রটেকশনের (সিবিপি) সাম্প্রতিক এক প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে। খবর রয়টার্স।

সিবিপির মুখপাত্র সালভাদর জামোরা বলেন, অবৈধভাবে যুক্তরাষ্ট্র-মেক্সিকো সীমান্ত পাড়ি দেয়া এবং আশ্রয় দাবি করা ভারতীয়দের সংখ্যা ক্রমে বাড়ছে। বেআইনিভাবে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করানোর জন্য মানব পাচারকারীরা জনপ্রতি ২৫ থেকে ৫০ হাজার ডলার পর্যন্ত নিয়ে থাকে। তিনি আরো বলেন, অনেকেই যুক্তিসঙ্গতভাবে আশ্রয় প্রার্থনা করে। তবে অবৈধ অনুপ্রবেশকারীদের একটি বড় অংশই অর্থনৈতিক অভিবাসী, যারা প্রতারণামূলক আশ্রয় আবেদন করে।

এ বিষয়ে ওয়াশিংটনে ভারতীয় দূতাবাস ও সানফ্রান্সিসকোয় ভারতীয় কনসুলেটের পক্ষ থেকে কোনো মন্তব্য করা হয়নি। তবে এ প্রসঙ্গে সিবিপির মুখপাত্র জামোরা জানান, সেপ্টেম্বরে শেষ হওয়া অর্থবছর শেষে হিসাবে দেখা যাবে, এ সময় ‘প্রায় নয় হাজার’ অবৈধ ভারতীয় নাগরিক যুক্তরাষ্ট্রে আটক হয়েছে, যা আগের অর্থবছরে ছিল ৩ হাজার ১৬২ জন। চলতি বছর যুক্তরাষ্ট্রে আটককৃত অনুপ্রবেশকারী ভারতীয়দের মধ্যে প্রায় চার হাজারজন মেক্সিক্যালির তিন মাইল কাঁটাতারের বেড়া পাড়ি দিয়ে এসেছে।

তিনি আরো বলেন, ‘গুজব ছড়িয়ে পড়েছে যে, মেক্সিক্যালি একটি নিরাপদ সীমান্ত শহর, যেখান দিয়ে অনায়াসেই যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করা যায়।’

ভারত থেকে বিভিন্ন শ্রেণীয় মানুষ যুক্তরাষ্ট্রে আশ্রয় প্রার্থনা করে। এর মধ্যে নিজেদের গোত্রের বাইরে বিয়ের কারণে প্রাণনাশের হুমকিতে থাকা নিম্নশ্রেণীর ‘অস্পৃশ্য’ ভারতীয় নাগরিক থেকে শুরু করে রাজনৈতিক আশ্রয় প্রার্থনা করা শিখরাও রয়েছে বলে জানিয়েছেন অভিবাসনবিষয়ক আইনজীবীরা। প্রতারক আশ্রয়প্রার্থীরা বেশির ভাগ সময়ই অন্য অভিবাসীদের ব্যক্তিগত তথ্য ‘কাট ও পেস্ট’ করে নিজেদের বলে চালিয়ে দেয়।

সিরাকিউজ ইউনিভার্সিটির ট্রানজ্যাকশনাল রেকর্ডস অ্যাকসেস ক্লিয়ারিং হাউজের তথ্যানুযায়ী, ২০১২-১৭ সাল পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রে আশ্রয় প্রার্থনা করা ভারতীয় নাগরিকদের ৪২ দশমিক ২ শতাংশ আবেদনই প্রত্যাখ্যান করা হয়েছে। এল সালভাদর ও হন্ডুরাসের নাগরিকদের ক্ষেত্রে এ প্রত্যাখ্যানের হার যথাক্রমে ৭৯ ও ৭৮ শতাংশ।

বর্ডার পেট্রলের দেয়া তথ্যানুযায়ী, চলতি বছর মেক্সিকোর পরই গুয়াতেমালা, হন্ডুরাস ও এল সালভাদরের নাগরিকরা সবচেয়ে বেশি যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করতে চেয়েছে। প্রাপ্ত তথ্য-উপাত্তে দেখা গেছে, চলতি বছর প্রায় ৩০ হাজার এল সালভাদরের নাগরিক যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করেছে।

সিবিপির মুখপাত্র জামোরা জানান, যুক্তরাষ্ট্রে আটক হওয়ার পর অনেক ভারতীয় মানব পাচারকারী চক্রের সদস্যদের মাধ্যমে মুক্ত হয়। কিন্তু এর বিনিময়ে ঋণ পরিশোধের জন্য তাদের বিভিন্ন হোটেল থেকে শুরু করে দোকানে দাসের মতো কাজ করতে হয়।