বাংলাদেশি অভিবাসীদের ‘উইপোকা’ বললেন বিজেপি সভাপতি, পাল্টা জবাব ইনুর

বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ এবং তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু। ছবি- সংগৃহীত

অমিত শাহ’র এই বক্তব্য অনাকাঙ্ক্ষিত এবং বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক নিয়ে তিনি কথা বলার জন্য যোগ্য নন বলে মন্তব্য করেছেন ইনু।

ভারতীয় জনতা দল-বিজেপি’র সভাপতি অমিত শাহ বলেছেন, ‘‘বাংলাদেশি অভিবাসীরা ‘উইপোকা’, শীঘ্রই ভোটার তালিকা থেকে এদের বাদ দেয়া হবে।’ শনিবার (২২ সেপ্টেম্বর) রাজস্থানে নির্বাচন-পূর্ব এক সমাবেশে এ মন্তব্য করেন তিনি। ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম এনডিটিভি এ খবর জানায়।

আসামে নাগরিকপঞ্জি (এনআরসি) প্রকাশ সম্পর্কে বিজেপি সভাপতি বলেন, ‘৪০ লাখ অবৈধ অভিবাসীকে চিহ্নিত করা হয়েছে। প্রত্যেকটি অনুপ্রবেশকারীকে খুঁজে বের করা হবে।’

এদিকে অমিত শাহ’র এই মন্তব্যের সমালোচনা করেছেন বাংলাদেশের তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু। অমিত শাহ’র এই বক্তব্য অনাকাঙ্ক্ষিত এবং বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক নিয়ে তিনি কথা বলার জন্য যোগ্য নন বলে মন্তব্য করেছেন ইনু।

ভারতীয় গণমাধ্যম দ্য হিন্দুকে বাংলাদেশ তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেন,‘বাংলাদেশিদের ‘উইপোকা’ বলে অভিহিত করে অমিত শাহ যে বক্তব্য দিয়েছেন তা অনাকাঙ্ক্ষিত। ঢাকা তার এই বক্তব্যকে কোনো গুরুত্ব দিচ্ছে না কারণ এটা ভারতের অফিসিয়াল কোনো বক্তব্য নয়। আমরা মনে করি আসামের এনআরসি প্রক্রিয়া এবং ভারতে বাংলাভাষীদের উন্নয়ন সম্পর্কিত কার্যক্রম ভারতের অভ্যন্তরীণ ব্যাপার।’

তিনি আরো বলেন, ‘অমিত শাহ বাংলাদেশ- ভারত সম্পর্ক নিয়ে কথা বলার যোগ্য নন।’

এছাড়া অমিত শাহ আসামে সম্প্রতি প্রকাশিত জাতীয় নাগরিক পঞ্জির (এনআরসি) দিকে ইঙ্গিত করে আরো বলেছিলেন, ‘বিজেপি সরকার এই এনআরসি তৈরি করেছে এবং প্রায় ৪০ লাখ অবৈধ অভিবাসীকে চিহ্নিত করেছে।’

অমিত শাহ বলেন, ‘বিজেপি সরকার প্রত্যেক ‘অনুপ্রবেশকারীকে’ চিহ্নিত করবে।’

কংগ্রেসের সমালোচনা করে অমিত শাহ বলেন, ‘কংগ্রেস দেশকে সহায়তা করতে পারবে না। কারণ তাদের নেতাও নেই নীতিও নেই।’

উল্লেখ্য, চলতি বছরের ৩০ জুলাই আসামের রাজধানী গৌহাটি থেকে চূড়ান্ত খসড়া নাগরিক নিবন্ধন তালিকা বা নাগরিকপঞ্জি প্রকাশ করা হয়। এতে নিবন্ধনের জন্য আবেদন করা ৩ কোটি ২৯ লাখ মানুষের মধ্যে ২ কোটি ৮৯ লাখকে চূড়ান্ত তালিকায় স্থান দেয়া হয়। তালিকা থেকে বাদ পড়েন আসামের ৪০ লাখ ৭ হাজার ৭০৮ জন মানুষ। এদের বেশিরভাগই বাংলাভাষী মুসলমান।