বাংলার বিজয় বহর আগামী ১৬ই ডিসেম্বর লস এঞ্জেলেসে

এ বছর নতুন আঙ্গিকে আয়োজিত হবে বাংলার বিজয় বহর।

চ্যারিটেবল কার্যক্রমের সূচনা।

লস এঞ্জেলেসের লিটল বাংলাদেশে বিগত বছরগুলোর মত এ বছরও আয়োজিত হতে যাচ্ছে বাংলার বিজয় বহর। আগামী ১৬ই ডিসেম্বর ২০১৮ শ্যাটো রিক্রিয়েশন সেন্টারে অনুষ্ঠিত হবে। লস এঞ্জেলেসে বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধের বিজয় দিবসকে প্রতিবারের মত এবছরও অত্যন্ত বর্নাঢ্যভাবে উদযাপনের জন্যে নানা কর্মসূচী গ্রহণ করা হয়েছে। তাঁর মধ্যে রয়েছে দুই পর্বের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। দুপুরে অনুষ্ঠিত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের পর হবে বর্নাঢ্য মটর শোভাযাত্রা। বর্নীল সাজে সজ্জিত হয়ে দেশাত্মবোধক গানের সাথে শতাধিক গাড়ির বহর প্রদক্ষিণ করবে লিটল বাংলাদেশকে।

দ্বিতীয় পর্বের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হবে সন্ধ্যায়। ঢাকা থেকে খ্যাতিমান সঙ্গীত শিল্পীদের সাথে স্থানীয় পর্যায়ের শিল্পীদের নানারকম পরিবেশনায় সাজানো হয়েছে এই পর্ব। নতুন প্রজন্মের অংশগ্রহণেও থাকছে একটা পর্ব। এছাড়া এবছর মেধাবী ছাত্রদের অনুপ্রেরণামূলক সহযোগিতার ব্যাবস্থা থাকছে। যা নগদ অর্থমূল্যে প্রদান করা হবে। থাকছে জেসমিন খান স্মৃতি ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে আয়োজিত কিছু পুরস্কারও।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধের বিজয়ের দিনটি লস এঞ্জেলেসের প্রবাসী বাংলাদেশিদের নিয়ে বর্নাঢ্য উদযাপনের লক্ষ্যে ২০১০ সালে বাংলার বিজয় বহর যাত্রা শুরু করে। এবছর এ আয়োজনের ৯ তম বছর।

এবছর বিজয়বহরের কমিটিতেও কিছু রদবদল এসেছে।

কনভেনর করা হয়েছে মিকাইল খানকে।

বিশেষ করে চেয়ারম্যান হিসাবে মুজিব সিদ্দিকী অবসর গ্রহণ করে বোর্ড অব ট্রাষ্টির প্রধান হয়েছে আর চেয়ারম্যান মনোনীত করা হয়েছে মেজর (অবঃ) সাইফ কুতুবিকে। পর পর দুইবার কনভেনর হিসাবে দায়িত্ব পালনের পর আবু হানিফাকে ভাইস প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। ডাঃ সিরাজুল্লাহকে চ্যান্সেলর ও সামসুদ্দিন মানিক প্রেসিডেন্ট হিসাবে স্বপদেই বহাল আছে। তারিক বাবু, শফি আহমেদ ও মাসুদ হাসান কো চেয়ারম্যান ও সাধারণ সম্পাদক হিসাবে ইসমাইল হোসেনকে দায়িত্ব দিয়ে ২৯ সদস্যবিশিষ্ট পুর্নাঙ্গ কমিটি করা হয়েছে। এছাড়াও মোহাম্মদ খলিলুর রাহমান রাজুকে যুগ্ম সম্পাদক, শহীদ আলম মিঠুকে সাংস্কৃতিক সম্পাদক, কাজি নাজির হোসেনকে মিউজিক ডিরেক্টর, হাসিনা বানুকে প্রজন্ম সংগঠক, ফারহানা সাঈদ শিল্প ও সাহিত্য সম্পাদক, মেহেদি হাসান, এলেন ইলিয়াস, অলি রাহাত ও মায়মুনা চৌধুরীকেও রাখা হয়েছে ২৯ সদস্যের কমিটিতে। লস এঞ্জেলেসের বিশিষ্ট অনুষ্ঠান সংগঠক, সঞ্চালক ও পরিচালক মিথুন চৌধুরীর তত্ত্বাবধানে থাকছে অনেক নতুনত্ব।

গত ৪ নভেম্বর বাংলার বিজয় বহরের প্রথম আনুষ্ঠানিক মিটিং এর মধ্য দিয়ে ঘোষণা করা হয় এবছর থেকে বিজয় বহরের সমগ্র বাজেটের শতকরা দুইভাগ আলাদা করে বাংলাদেশের সুবিধাবঞ্চিত মানুষের মাঝে কল্যাণমূলক কাজে ব্যায় করা হবে।

এই বছরের বাংলার বিজয় বহর কমিটিতে অনেক নতুন মুখ দেখা যাচ্ছে। তবে বিজয় বহরের সুনাম ক্ষুন্ন হয় এমন লোকজনের উপস্থিতিও লক্ষ্য করা যাচ্ছে। এ ব্যাপারে বিওটির চেয়ারম্যান মুজিব সিদ্দিকীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি কমিটির নতুন সদস্যদের অর্ন্তভুক্তির ব্যাপারে বিশেষ নজর দিবেন বলে জানিয়েছেন।