২০১৮ সালের আলোচিত ও পাঠকদের আগ্রহের খবরগুলি

২০১৮-তে যেসব খবর পাঠক বেশি পড়েছে

গত বছরের পুরোটা ছিল ঘটনাবহুল। এর মধ্যে কিছু কিছু ঘটনা ছিল পাঠকদের আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে। ২০১৮ সালে অনুষ্ঠিত হয়েছে পুরুষদের ফুটবল বিশ্বকাপ। পাঠকেরা বিশ্বকাপের খবরের প্রতি আগ্রহী ছিলেন বছরজুড়েই। অন্যদিকে প্রিন্স হ্যারি ও মেগান মার্কেলের রাজকীয় বিয়ে নিয়েও মানুষের আগ্রহ ছিল তুমুল।

২০১৮ সালের আলোচিত ও পাঠকদের আগ্রহের কেন্দ্রে থাকা সংবাদগুলোর একটি তালিকা প্রকাশ করেছে ব্রিটিশ সাময়িকী ‘দ্য ইকোনমিস্ট’। মূলত চার্টবিট নামের একটি সংস্থা এই তালিকা তৈরি করেছে। সেটিই প্রকাশ করেছে ‘ইকোনমিস্ট’। প্রায় ৫ হাজার প্রকাশকের কাছ থেকে পাওয়া তথ্য বিশ্লেষণ করে তালিকাটি তৈরি করেছে চার্টবিট। এসব প্রকাশকের অর্ধেকই ইংরেজি ভাষাভাষী দেশের। অন্যদিকে মোট প্রকাশকের এক-চতুর্থাংশ ইউরোপের। সব মিলিয়ে ৩৩টি বিষয়ের ওপর প্রায় ৩০ লাখ সংবাদভিত্তিক নিবন্ধ বিশ্লেষণ করেছে চার্টবিট। সবটাই করা হয়েছে অনলাইনে পাঠকেরা কত সময় ছিলেন, তা হিসাব করে।
‘ইকোনমিস্ট’ বলছে, এক দিনে সবচেয়ে বেশি পাঠকের মনোযোগ আকর্ষণ করতে পেরেছে মেগান মার্কেল ও প্রিন্স হ্যারির রাজকীয় বিয়ে। এই দুজনের মালাবদলের খবরে পাঠকেরা প্রায় ১১ লাখ ঘণ্টা সময় ব্যয় করেছেন। থাইল্যান্ডের একটি গুহা থেকে কিছু খুদে ফুটবলারকে উদ্ধার করার খবরটিও বিশ্বে ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করেছিল। এই খবরে মোট ৩৪ লাখ ঘণ্টা সময় ব্যয় করেছেন পাঠকেরা।

তবে বছরজুড়ে সবচেয়ে বেশি পাঠককে আকৃষ্ট করেছে রাশিয়ায় অনুষ্ঠিত বিশ্বকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের নানা ঘটনা। চার্টবিট বলছে, ২০১৮ সালে অনলাইন মাধ্যমে লেখা সংবাদগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি পাঠক পেয়েছে গত জুন ও জুলাইয়ে অনুষ্ঠিত বিশ্বকাপ।
ইকোনমিস্ট বলছে, গত বছর অপেক্ষাকৃত ‘খারাপ’ খবরগুলোই তুলনামূলকভাবে বেশি পাঠক টানতে পেরেছে। সৌদি সাংবাদিক জামাল খাসোগিকে হত্যার মতো বিয়োগান্ত ঘটনাগুলোতে পাঠকেরা চোখ রেখেছেন বেশি। এ ছাড়া যুক্তরাষ্ট্রের পার্কল্যান্ডের হাইস্কুলে গুলির ঘটনা নিয়েও করা সংবাদও অনেক পাঠককে আকৃষ্ট করেছে। গত আগস্টে জেনোয়াতে সেতু ধসে যাওয়ার ঘটনাটিতে পাঠকেরা আটকে ছিলেন প্রায় ১ কোটি ২০ লাখ ঘণ্টা। তবে ইয়েমেনের গৃহযুদ্ধ নিয়ে মানুষের আগ্রহ কিছুটা কমই ছিল। পুরো বছরে এই গৃহযুদ্ধের খবরে মোটে ৩৫ লাখ ঘণ্টা সময় ব্যয় করেছেন পাঠক।
গত বছর ব্যবসা-বাণিজ্যের খবরে পাঠকদের আগ্রহ ছিল কম। তবে কোনো বড় করপোরেট বা বিখ্যাত মাল্টিন্যাশনাল প্রতিষ্ঠানের ভাগ্যের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট খবর মানুষ বেশি পড়েছেন। বিশেষ করে পুরো ২০১৮ সালেই সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকের নানা কেচ্ছা-কাহিনি প্রকাশিত হয়েছে। বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় এই সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমকে নিয়ে করা সংবাদে পাঠকদের আগ্রহ ছিল বেশি। এর পেছনে ব্যয় করা হয়েছে প্রায় ৩০ লাখ ঘণ্টা। অন্যদিকে এলন মাস্ক, তাঁর প্রতিষ্ঠান টেসলা ও স্পেসএক্স নিয়ে তৈরি খবরে পাঠকেরা ব্যয় করেছেন বছরে প্রায় ৭০ লাখ ঘণ্টা। মহাকাশে শক্তিশালী রকেট পাঠিয়ে বা যানজট নিয়ন্ত্রণে ব্যতিক্রমী টানেল বানানোর মতো কাজ করে সারা বছরই সাধারণ মানুষের মনোযোগ আকর্ষণ করেছে এলন মাস্কের এই প্রতিষ্ঠানগুলো।
একটি দিক থেকে ২০১৭ সালের সঙ্গে ২০১৮ সালের বেজায় মিল রয়েছে। দুটি বছরের এই মেলবন্ধন রচনা করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। গত বছরও পুরো দুনিয়ার মানুষকে সংবাদমাধ্যমে টেনে আনার কাজটি করেছেন তিনি। গত জুনে উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং–উনের সঙ্গে হওয়া ট্রাম্পের বৈঠকের বিভিন্ন খবরের পেছনে প্রায় ১৫ লাখ ঘণ্টা সময় ব্যয় করেছেন পাঠক। ২০১৬ সালের মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রুশ হস্তক্ষেপের অভিযোগ নিয়েও অনেক পাঠক আগ্রহী ছিলেন। ফলাফল, এ-সংক্রান্ত খবরে পুরো বছরে তাঁরা ব্যয় করেছেন ১ কোটি ২০ লাখ ঘণ্টা। অন্যদিকে যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যবর্তী নির্বাচনে রিপাবলিকান পার্টির পারফরম্যান্সের খবরে ব্যয় হয়েছে ২ কোটি ৬০ লাখ ঘণ্টা।
তবে বিশ্বনেতাদের মধ্যে পাঠক আকর্ষণের জন্য শুধু যে ট্রাম্প আছেন, তা নয়। ব্রাজিলের নির্বাচন উপলক্ষে সেদেশের ডানপন্থী নেতা জেইর বোলসোনারোর জন্য পাঠকেরা ৯৭ লাখ ঘণ্টা সময় ব্যয় করেছেন। অন্যদিকে বিশ্বকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট চলাকালে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের বিষয়ে আগ্রহ ছিল তুঙ্গে। এরপরই হয়েছে দেশটির প্রেসিডেন্ট নির্বাচন। সুতরাং ডোনাল্ড ট্রাম্পের পাশাপাশি লাইমলাইটে পুতিনের উপস্থিতিও ভালো ছিল।