২০১৯ সালে ধর্ষণ বেড়েছে দ্বিগুণ

২০১৯ সালে ধর্ষণ বেড়েছে দ্বিগুণ

বাংলাদেশে ধর্ষণ বাড়ছে৷ বেড়েছে নারীর প্রতি সহিংসতাও৷ কঠোর আইন, প্রচার প্রচারণা ও উচ্চ আদালতের নানা ধরনের নির্দেশনার পরও নারীর প্রতি সহিংসতা কমানো যাচ্ছে না৷

Symbolbild Protest gegen Vergewaltigung (picture-alliance/Pacific Press/E. McGregor)

মানবাধিকার সংস্থা আইন ও সলিশ কেন্দ্র (আসক) এর হিসাব অনুযায়ী, ২০১৯ সালে এক হাজার ৪১৩জন নারী ধর্ষণের শিকার হয়েছেন৷ ২০১৮ সালে এই সংখ্যা ছিলো ৭৩২জন৷ অর্থাৎ, গত বছরের তুলনায় ধর্ষণের ঘটনা বেড়েছে দ্বিগুণ যা ভয়াবহ বলে উল্লেখ করেছে সংস্থাটি৷

২০১৭ সালে ধর্ষণের শিকার হয়েছেন ৮১৮ জন নারী৷ এদিকে ২০১৯ সালে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে ৭৬জনকে৷ আর আত্মহত্যা করতে বাধ্য হয়েছেন ১০জন নারী৷

নারীর প্রতি সহিংসতার অন্য চিত্রগুলোও ভয়াবহ৷ ২০১৯ সালে যৌন হয়ানারীর শিকার হয়েছেন ২৫৮ জন নারী৷ ২০১৮ সালে এই সংখ্যা ছিলো ১৭০ জন৷

২০১৯ যৌন হয়রানীর শিকার ১৮ জন নারী আত্মহত্যা করেছেন৷ প্রতিবাদ করতে গিয়ে চারজন নারীসহ ১৭ জন হত্যার শিকার হয়েছেন৷ যৌন হয়রানীর প্রতিবাদ করতে গিয়ে ৪৪ পুরুষ নির্যাতনের শিকার হয়েছেন৷

গত বছর যৌতুকের কারণে নির্যাতনের শিকার হয়েছেন ১৬৭ জন নারী৷ তাদের মধ্যে নির্যাতনে নিহত হন ৯৬ জন এবং আত্মহত্যা করেন তিনজন৷ আর পারিবারিক নির্যাতনের শিকার হয়েছেন মোট ৪২৩ জন নারী৷

‘যারা ধর্ষক তারা ধর্ষণের শিকার নারীর চেয়ে শক্তিশালী’

গত বছর ২০০ জন নারী তাদের স্বামীর হাতে হত্যার শিকার হয়েছেন৷ ২০১৮ সালে এই সংখ্যা ছিলো ১৭৩ জন৷

এর বাইরে অ্যাসিড নিক্ষেপ, ফতোয়া এবং সালিশি ব্যবস্থার শিকার হয়েছেন অনেক নারী৷ গত বছর তিনজন নারী ফতোয়ার কারণে শারীরিক নির্যাতনের শিকার হন৷ তাদের মধ্যে একজন পরে আত্মহত্যা করেন৷

আইন ও সালিশ কেন্দ্রের সাবেক নির্বাহী পরিচালক এবং মানবাধিকার নেত্রী সুলতানা কামাল নারীর প্রতি সহিংসতা বেড়ে যাওয়ার কারণ হিসেবে বিচারহীনতাকেই দায়ী করেন৷ তবে রাষ্ট্র ও সমাজে নারীর প্রতি সহিংসতার আরো অনেক উপাদান আছে বলে মনে করেন তিনি৷

তিনি বলেন, ‘‘ধর্ষণসহ নারীর প্রতি সহিংসতার যেসব ঘটনা ঘটে তার একটি অংশ জানা যায় না৷ এ বিষয়ে কোনো মামলা হয় না৷ আর যেগুলোর মামলা হয় বিশেষ করে ধর্ষণের ক্ষেত্রে সেখানে শতকরা মাত্র তিন ভাগ ঘটনায় শেষ পর্যন্ত অপরাধী শাস্তি পায়৷ আর ধর্ষণের পর হত্যার ঘটনায় শাস্তি হয় মাত্র শূন্য দশমিক তিন ভাগ৷ তাহলে বোঝা যাচ্ছে এ ধরনের কোনো ঘটনায় বিচার হয় না৷’’ তবে এর বাইরেও আরো অনেক বিষয় আছে বলে মনে করেন তিনি৷

এ মানবাধিকার নেত্রী বলেন, ‘‘যারা ধর্ষক তারা ধর্ষণের শিকার নারীর চেয়ে শক্তিশালী৷ অন্যদিক বাদ দিলেও লৈঙ্গিকভাবে পুরুষ শক্তিশালী৷ তারা সামাজিক এবং রাজনৈতিকভাবেও শক্তিশালী৷ নারীদের সামাজিকভাবে সুরক্ষা দেয়ার রাষ্ট্রের যে দায়িত্ব রয়েছে রাষ্ট্র তা পালন করছে না৷ আর নারীদের বাইরে বের হওয়া কিংবা কাজে যাওয়ার বিষয়গুলোকে সমাজে এখনো ভালো চোখে দেখা হয় না৷ নারীর বাইরে বের হওয়াকে পুরুষের ক্ষমতা খর্ব হওয়া হিসেবে দেখা হয়৷ আর প্রতিদিন নানা জায়গায় নারীর বিরুদ্ধে কথা বলা হয় কিন্তু সরকার ব্যবস্থা নেয় না৷ ফলে নারীর প্রতি সহিংসতা বাড়ছে৷’’

‘অপরাধীর শাস্তি নিশ্চিত কঠিন হয়ে পড়ে’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন ও অপরাধ বিজ্ঞানের অধ্যাপক শেখ হাফিজুর রহমান কার্জনের মতে নারীর প্রতি সহিংসতার বিরুদ্ধে বাংলাদেশে শক্ত আইন আছে৷ ‘‘কিন্তু শাস্তি দিয়ে খুব বেশি অপরাধ কমানো যায় না৷ আর এটা ধর্ষণ এবং ধর্ষণের পর হত্যার ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য৷ আমাদের এখানে সমাজের ভিতরে অসংখ্য উপাদান আছে যা ধর্ষণ বা নারীর প্রতি সহিংসতাকে উসকে দেয়৷ আমাদের সমাজে এখানো নারীকে ভোগের সামগ্রী মনে করা হয়৷ তাকে সেভাবে উপস্থাপনও করা হয় বিভিন্ন মাধ্যমে,’’ বলেন তিনি৷

ফৌজদারী বিচার ব্যবস্থা এবং সাক্ষ্য আইনে নানা সমস্যা রয়েছে৷ আছে ধর্ষণের শিকার একজন নারীর চরিত্র হননের সুযোগ৷ কিন্তু একজন যৌনকর্মীর সঙ্গেওতো তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে কিছু করা যাবে না৷ করা হলে সেটা ধর্ষণ হবে৷ এখানে অভিযোগ থানায় জানাতে গিয়েও ধর্ষণের শিকার হয়, বললেন শেখ হাফিজুর রহমান৷

তিনি বলেন, ‘‘একটি নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে ডাক্তারি পরীক্ষা না করলে ধর্ষণের আলামত নষ্ট হয়ে যায়৷ আদালতে তাকে অনেক বিব্রতকর প্রশ্ন করা হয়৷ ফলে অপরাধীর শাস্তি নিশ্চিত করা কঠিন হয়ে পড়ে৷’’

 

Bigstock

Report shows child deaths, rape alarmingly high in 2019

Manusher Jonno Foundation (MJF) has presented a report that revealed a surge in child deaths and rape, among others, in 2019 compared to the year before.

The organization’s Program Coordinator Rafeza Shaheen presented the report at a press conference in the National Press Club Tuesday morning.

In 2019, around 902 children were raped. Among them, 48% were between the ages of 13 and 18, and 39% were between the ages of seven and 12.

However, the number of children who were raped in 2018 was 356.

According to the report, the highest number of news reports about rapes was published in Dhaka.

Officials of Manusher Jonno Foundation (MJF) present a report at National Press Club on January 7, 2020 | Syed Zakir Hossain/Dhaka TribuneThe report also disclosed that murder was attempted on 329 children in 2019. Among them, 266 were killed, and 63 were injured.

On the other hand, around 227 children died among the 276 on whom murder was attempted.

The report illustrated different categories of child abuse such as rape, attempted rape, murder, attempted murder, abduction, torture and many more, which were formed based on information from various news and media outlets, including Prothom Alo, Samakal, The Daily Star, Dhaka Tribune, and others.

The press conference was chaired by the Executive Director of Manusher Jonno Foundation, Shaheen Anam. MP Aroma Dutta, also a social and human rights activist, and Sabina Sultana, senior program officer, of multi-sectoral program on violence against women under Ministry of Women and Children Affairs, among others, were present during the briefing.

Source:
https://www.dhakatribune.com/bangladesh/2020/01/07/report-shows-child-deaths-rape-alarmingly-high-in-2019