সেমিস্টার ফাইনাল ছাড়াই গ্রেড পাবে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীরা

সেমিস্টার ফাইনাল ছাড়াই গ্রেড পাবে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীরা

শিহাব উদ্দিন | দ্যা ডেইলি ক্যাম্পাস

নভেল করোনাভাইরাসের মহামারীর মধ্যে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় সেমিস্টার ফাইনাল পরীক্ষা না নিয়েই শিক্ষার্থীদের চলতি সেমিস্টারের গ্রেডিং করতে পারবে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলো। এই ফলাফল বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কাউন্সিলের সুপারিশের ভিত্তিতে প্রকাশ করতে হবে। এক্ষেত্রে শিক্ষার্থীদের বিগত সেমিস্টারের প্রাপ্ত গ্রেড পর্যালোচনা করার সুপারিশ করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৭ মে) বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের (ইউজিসি) বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় বিভাগের পরিচালক ড. মো. ফখরুল ইসলাম স্বাক্ষরিত কার্যালয় স্মারকের মাধ্যমে এই তথ্য জানানো হয়।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ইউজিসির বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় বিভাগের পরিচালক ড. মো. ফখরুল ইসলাম বলেন, করোনা পরিস্থিতির এই সময় আরো দীর্ঘ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এই মুহূর্তে বিশ্ববিদ্যালয়ে গিয়ে পরীক্ষা দেওয়ারও সুযোগ নেই। শিক্ষার্থীদের যেন সময় নষ্ট না হয়— সেজন্য আমরা এমন বিকল্প পদ্ধতি অবলম্বন করার কথা বলেছি। তবে এটি শুধুমাত্র চলতি সেমিস্টারর জন্য প্রযোজ্য হবে। বিশ্বের অনেক দেশ এই পদ্ধতিতে শিক্ষার্থীদের ফলাফল দিয়ে থাকে। আমরা সার্বিক দিক বিবেচনায় এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

ড. মো. ফখরুল ইসলাম আরও বলেন, ফলাফল প্রস্তুতির ক্ষেত্রে যেসব বিশ্ববিদ্যালয় করোনা পরিস্থিতির আগে ন্যূনতম ৭০ শতাংশ ক্লাস সম্পন্ন করেছে তারা এখন কোনো ক্লাস-পরীক্ষা না নিলেও চলবে। শিক্ষার্থীদের মিডটার্ম, কুইজ, এসাইনমেন্ট, প্রেজেন্টেশন যথাযথ মূল্যায়ন করে ফল প্রকাশ করা যাবে। এক্ষেত্রে শিক্ষার্থীদের পূর্বের সেমিস্টারের ফলাফল পর্যালোচনা করা যাবে। এই ফলাফল বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কাউন্সিলের সুপারিশের ভিত্তিতে প্রকাশ করতে হবে

কার্যালয় স্মারকে চলমান সেমিস্টারের শিক্ষা কার্যক্রম সম্পন্ন করার বিকল্প প্রস্তাবনা-২ এর দুই নাম্বারে বলা হয়েছে, চলমান সেমিস্টারে তত্ত্বীয় কোর্সের বিভিন্ন বিষয়ে রেজিস্ট্রিকৃত শিক্ষার্থীদের অনলাইনের মাধ্যমে ওই সকল বিষয়ের অসমাপ্ত পাঠ্যসূচি ( যা ৩০% মত) সন্তোষজনক ভাবে সম্পন্ন হয়ে গেলে এবং অনলাইনের কার্যক্রম শুরুর আগে চলমান সেমিস্টারের বিভিন্ন বিষয়ে ইতোপূর্বে ক্লাসে উপস্থিতি পারফরম্যান্স, ক্লাস টেস্ট, মিড টার্ম পরীক্ষার উপর ভিত্তি করে মূল্যায়ন করা হয়েছে তার নম্বর এবং অনলাইনে অংশের উপর অ্যাসাইনমেন্ট, ভার্চুয়াল প্রেজেন্টেশন নিয়ে যথাযথ স্বচ্ছতা ও মান নিশ্চিত করে মূল্যায়ন সম্পন্ন করে ফলাফল প্রকাশ করা যাবে। মূল্যায়নের জন্য প্রয়োজন হলে পূর্বের সেমিস্টারের ফলাফল বিবেচনায় আনা যেতে পারে। সকল বিষয়ের ফলাফল বিশ্ববিদ্যালয়ের সুপারিশের ভিত্তিতে প্রকাশ করতে হবে।

জানা গেছে, করোনা মহামারীর আগে ও পরে অনলাইন ক্লাস করে ইউজিসি’র এই শর্ত অনেক বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ই পূরণ করেছে। সে হিসেবে চাইলে একাডেমিক কাউন্সিলের সিদ্ধান্ত নিয়ে অনেক বিশ্ববিদ্যালয়ই চলতি সেমিস্টারের ফাইনাল পরীক্ষা ছাড়া ফল প্রকাশ করতে পারবে।

করোনাভাইরাসের ফলে সৃষ্ট পরিস্থিতিতে শিক্ষা কার্যক্রম স্বাভাবিক রাখতে ২৩ টি নির্দেশনা দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের (ইউজিসি)। নির্দেশনায় বলা হয়, আগামী জুন মাস থেকে নতুন সেমিস্টারে শিক্ষার্থী ভর্তি শুরু করতে পারবে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো। আর নতুন সেমিস্টারের শিক্ষা কার্যক্রম আগামী পহেলা জুলাইয়ে শুরু করা যাবে। এছাড়া করোনা সংকটের কারণে আর্থিক সংকটে পরা শিক্ষার্থীদেব ক্ষেত্রে মানবিক দিক বিবেচনায় রেখে টিউশন ও অন্যান্য ফি মওকুফ, হ্রাস ও ইনস্টলমেন্ট প্রদানের সুযোগ রাখার নির্দেশনাও দেয়া হয়েছে।

এর আগে গত ৩০ এপ্রিল অনলাইনে উচ্চশিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা নিয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়, ইউজিসি ও বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের অংশগ্রহণে একটি ভার্চুয়াল সভা অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে চলমান অচলাবস্থায় বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনার জন্য একটি নির্দেশনা তৈরির দায়িত্ব দেয়া হয় ইউজিসিকে। সে আলোকে একটি নির্দেশনা তৈরি করে আজ দুপুরে তা ই-মেইলের মাধ্যমে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়কে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, ইউজিসির হিসাবে বর্তমানে দেশের ৬৩টি বিশ্ববিদ্যালয় অনলাইনের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের পাঠদান কার্যক্রম এগিয়ে নিচ্ছে। এর মধ্যে ৫৬টি বেসরকারি ও বাকি ৭টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়। বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর অনলাইন ক্লাসে শিক্ষার্থী অংশগ্রহণের হার ৬০ থেকে ৭০ শতাংশ।

টিউশন ফি ও ক্লাস-পরীক্ষার জন্য চাপ নয়: ইউজিসি

করোনা সংকটের মধ্যে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সর্বোচ্চ সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করার উপর জোর দিয়ে নির্দেশনা জারি করেছে ইউজিসি। নির্দেশনায় সেশন, টিউশন ফি আদায়ে মানবিক হওয়া এবং বিনামূল্যে অধ্যয়নের সুযোগ বৃদ্ধি করতে জোর দেয়া হয়। করোনাকালীন ক্লাসের লেকচারশিটসহ প্রয়োজনীয় শিক্ষা উপকরণ শিক্ষার্থীদের কাছে পৌঁছাতে ই-মেইল ও সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করতে বলা হয়েছে। আর কোন শিক্ষার্থীকে জোরপূর্বক ক্লাস-পরীক্ষায় অংশগ্রহনে বাধ্য করতে পারবে না বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

চলমান করোনা সঙ্কটে শিক্ষা কার্যক্রম অব্যাহত রাখতে দেশের বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়কে ২৩ নির্দেশনা দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জু্রি কমিশন (ইউজিসি)। সেখানে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে চলমান সেমিস্টার সম্পন্ন করার বিকল্প দুটি প্রস্তাব, অনলাইনে ক্লাস-পরীক্ষা চালানো, নতুন সেমিস্টারে শিক্ষার্থী ভর্তি এবং ১৪টি সাধারণ নির্দেশনাসহ মোট ২৩ নির্দেশনা জারি করেছে ইউজিসি। করোনাভাইরাসের সংকটের মধ্যে আজ বৃহস্পাতিবার দেশের বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়সমূহের জন্য এই নির্দেশনা জারি করা হলো।

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সর্বোচ্চ সুযোগ দেয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করতে নির্দেশানায় বলা হয়, ক্লাস লেকচার বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইট বা অনলাইন পোর্টালে নিয়মিতভাবে আপলোড করতে হবে। এছাড়া প্রয়ােজনে শিক্ষার্থীদের ই-মেইল বা সােশ্যাল মিডিয়া (হোয়াটস অ্যাপ, ফেসবুক মেসেঞ্জার গ্রুপ ইত্যাদি) মাধ্যমে ক্লাস লেকচারসহ সংশ্লিষ্ট অন্যান্য শিক্ষা উপকরণ অডিও-ভিডিও শিক্ষার্থীদের পৌঁছাতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবে। শিক্ষকদেরকে নিবিড়ভাবে শিক্ষার্থীদের সাথে যােগাযােগ রাখতে হবে এবং নিয়মিতভাবে কোর্স ম্যাটেরিয়ালস নিয়ে আলােচনা করতে হবে।

শিক্ষার্থীদের সেশন ও টিউশন ফি আদায়ে মানবিক হওয়ার নির্দেশনাও দেয়া হয়েছে। বলা হয়, করোনা সংকটের কারণে আর্থিক সংকটে পতিত শিক্ষার্থীদেব ক্ষেত্রে মানবিক দিক বিবেচনায় রেখে সেশন, টিউশন, অন্যান্য ফি মওকুফ, হ্রাস ও ইনস্টলমেন্ট প্রদানের সুযোগ রাখতে হবে। এসময়ে ফি আদায়ে মানসিক চাপ প্রদান সমীচীন নয় উল্লেখ করে তা পরিহার করে শিক্ষার্থীদের প্রতি মানবিক আচরণ করতে বলা হয়। এছাড়াও বিনা বেতনে অধ্যয়নের সুযোগও অবারিত করার নির্দেশনা দেয়া হয়।

এছাড়া কোনো শিক্ষার্থী করোনা সংকটে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হওয়ায়, চরম আর্থিক অস্বচ্ছতা বা অন্য কোনাে যৌক্তিক কারণে অনলাইন ক্লাসে অংশগ্রহণ করতে না পারলে/সক্ষম না হলে তাকে পরবর্তীতে অসমাপ্ত কোর্স সম্পন্ন করে পরীক্ষায় অংশগ্রহনের সুযোগ দিতে হবে। আর কোনাে শিক্ষার্থী তার গ্রেড (করোনাকালীন প্রাপ্ত) উন্নয়ন করতে চাইলে পরবর্তী সেমিস্টারে তাকে বিশেষ পরীক্ষার মাধ্যমে সেই সুযোগ দিতে হবে। উভয় ক্ষেত্রে কোনাে প্রকার অতিরিক্ত ফি নেয়া যাবে না।

তবে শিক্ষার সকল ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীরা যাতে পরীক্ষায় অসদুপায় অবলম্বন করতে না পারে সে বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে। আর যেকোন পরীক্ষা গ্রহণের অন্তত পাঁচ থেকে সাত দিন পূর্বে শিক্ষার্থীদের যথানিয়মে অবহিত করতে হবে।

নির্দেশনায় আরও বলা হয়, যেসব বিশ্ববিদ্যালয়ের অনলাইনে ক্লাস নেয়ার সক্ষমতা নেই সেসব বিশ্ববিদ্যালয় প্রয়ােজনে ইউজিসির বিডিরেন, বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল এবং এটুআইয়ের সহোযোগিতায় শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনার যথেষ্ট সক্ষমতা সৃষ্টি করবে।

এছাড়া করোনা পরিস্থিতি চলাকালীন সময়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল শিক্ষক/কর্মকর্তা কর্মচারীদের বেতন-ভাতাদি পূর্বের ন্যায় নিয়মিভাবে পরিশােধ করতে নির্দেশ দেয় ইউজিসি।