প্রধানমন্ত্রীর ভাষণের প্যাকেট রাস্তায়

জাতিসংঘে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভাষণসংবলিত পুস্তিকার প্যাকেট নিয়ে হুলুস্থুল ঘটে গেছে নিউইয়র্কে। নিরাপত্তাকর্মীরা বোমা সন্দেহ করায় এ নিয়ে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। যুক্তরাষ্ট্রের স্থানীয় সময় গত বৃহস্পতিবার বিকেলে জাতিসংঘে বাংলাদেশ মিশনের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

প্যাকেটগুলোকে নাশকতার উদ্দেশ্যে সন্ত্রাসীদের রেখে যাওয়া বোমা মনে করে নিউইয়র্ক পুলিশের বিশেষ স্কোয়াড, কেন্দ্রীয় তদন্ত ব্যুরো (এফবিআই), অ্যান্টি-টেররিজম টাস্কফোর্সের বিশেষ বাহিনীসহ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন সংস্থার লোকজন ব্যাপক তৎপরতা চালান। পরে আসল ঘটনা ধরা পড়ে।

বাংলাদেশ মিশনের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, প্রধানমন্ত্রীর ভাষণসংবলিত পুস্তিকার প্যাকেটগুলো সেকেন্ড অ্যাভিনিউ ও ৪৩ স্ট্রিটের পাশে রেখে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উধাও হয়ে যান। হঠাৎ মালিকবিহীন প্যাকেটগুলো পড়ে থাকতে দেখে বিস্ফোরক বলে সন্দেহ করা হয়। বৃহস্পতিবার বিকেলে এ ঘটনার পরই জাতিসংঘের পাশে অবস্থিত সেকেন্ড অ্যাভিনিউ বন্ধ করে দেয় পুলিশ। হুলুস্থুল পড়ে যায় পুরো এলাকায়। আতঙ্কিত অনেককে দ্রুত সরে যেতে দেখা যায়।

 নিউইয়র্ক পুলিশের বিশেষ স্কোয়াড, এফবিআই, অ্যান্টি-টেররিজম টাস্কফোর্সের বিশেষ বাহিনী, প্রশিক্ষিত ডগ স্কোয়াড, অ্যাম্বুলেন্সসহ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন সংস্থার লোকজন দ্রুত ঘঠনাস্থলে পৌঁছান। কয়েক ঘণ্টার শ্বাসরুদ্ধকর নাটকীয়তা ও ব্যাপক পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর প্রধানমন্ত্রীর ভাষণের প্যাকেটগুলো জব্দ করে নিয়ে যায় নিরাপত্তাসংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

জাতিসংঘে বাংলাদেশ মিশনের ব্যাপক দেনদরবার ও দুঃখ প্রকাশের পর বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার দিকে কর্তৃপক্ষ প্যাকেটগুলো ফেরত দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিলে হাঁফ ছেড়ে বাঁচে বাংলাদেশ মিশন। প্রধানমন্ত্রীর ভাষণের প্যাকেটগুলোর দায়িত্বে নিয়োজিত কর্মকর্তার এমন দায়িত্বহীন আচরণ বিস্মিত করেছে সিটি কর্তৃপক্ষ ও বিভিন্ন কূটনৈতিক মিশনকে।

জানা গেছে, ভাষণের প্যাকেটগুলো জাতিসংঘে বাংলাদেশ মিশনে রাখার জন্য মিশনের সামনে নিয়ে আসা হয়। এ সময় এর দায়িত্বে নিয়োজিত কর্মকর্তা রাস্তার পাশে প্যাকেটগুলো রেখে চারতলায় অবস্থিত বাংলাদেশ মিশনের অফিসে যান। আকস্মিকভাবে রেখে যাওয়া একাধিক প্যাকেট রাস্তার পাশে দেখেই টনক নড়ে যায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর। মুহূর্তেই হইচই পড়ে যায়।