যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে নিষিদ্ধ প্রাণ কোম্পানির গুঁড়ো হলুদ

pran USA Ekush.infoপরিবর্তন প্রতিবেদক •
যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে নিষিদ্ধ হয়েছে দেশের অন্যতম ব্রান্ড প্রাণ কোম্পানির গুঁড়ো হলুদ। হলুদে সহনীয় মাত্রার চেয়ে বেশি পরিমাণে সিসার অস্তিত্ব পেয়েছে তারা। এ নিয়ে উদ্বেগও প্রকাশ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। এখন থেকে প্রাণের হলুদ যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে আর থাকছে না। যুক্তরাষ্ট্রের খাদ্য ও ওষুধ প্রশাসন ১৫ অক্টোবর এ সংক্রান্ত একটি প্রেসনোটও জারি করেছে।

ওই প্রেসনোটের ভাষ্য হলো, প্রাণের হলুদের গুঁড়ায় উচ্চমাত্রার সিসা পাওয়া গেছে, যা নবজাতক, কম বয়সী শিশু ও গর্ভবতী মায়েদের স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর।

প্রেসনোটে আরো জানানো হয়, যুক্তরাষ্ট্রের খাদ্য ও ওষুধ প্রশাসন প্রাণের হলুদের গুঁড়ার নমুনা সংগ্রহের পর তা পরীক্ষা করেছে। তারা এতে বেশি মাত্রায় সিসা পাওয়ার পর ‘বেস্ট ভ্যালু ইনকরপোরেশন’ প্রাণের পণ্য বাজার থেকে প্রত্যাহার করা শুরু করে।

Pran Ekush.infoপ্রেসনোটে বলা হয়, মাত্রাতিরিক্ত পরিমাণ সিসা মানসিক ও শারীরিক বিকাশ এবং শেখার ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধকতা তৈরিসহ বিভিন্ন স্বাস্থ্যগত সমস্যা তৈরি করতে পারে। গর্ভবর্তী নারী, নবজাতক ও কম বয়সী শিশুদের সিসা গ্রহণ থেকে বিরত রাখা উচিত। তাই যেসব লোক তাদের রক্তে সিসার উপস্থিতি নিয়ে শঙ্কিত, তাদের উচিত চিকিত্সক বা স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্রে গিয়ে পরীক্ষা করা।

ইতোমধ্যে যারা এ হলুদ কিনেছেন তাদের হলুদের প্যাকেট ফেরত দেওয়ার জন্যও আহ্বাণ জানানো হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে পণ্য ফেরতের ব্যাপারে প্রাণ-আরএফএল গ্রুপের গণমাধ্যম শাখার সহযোগী ম্যানেজার (যোগাযোগ) কে এম জিয়াউল হক পরিবর্তন ডটকমের কাছে দাবি করেন,”এ ব্যাপারে আমার কোনো তথ্য জানা নেই। আপনার কাছ থেকে এটা প্রথম শুনলাম। আপনি পরিচালক (মার্কেটিংকে) এর সাথে কথা বলেন।”

এরপরই প্রাণ-আরএফএল গ্রুপের পরিচালক (মার্কেটিং) কামরুজ্জামান কামালের সাথে যোগাযোগ করা হয়। তিনি পরিবর্তন ডটকমের কাছে দাবি করেন,”ভৌগোলিক কারণে দেশে উৎপাদিত হলুদে সিসার পরিমাণ বেশি। হলুদে যে পরিমাণ সিসা আছে তা বিএসটিআই অনুমোদন করেছে; কিন্তু যুক্তরাষ্ট্রের স্ট্যান্ডার্ড এটাকে অনুমোদন করেনি। তাই যুক্তরাষ্ট্র প্রাণের হলুদের ব্যাপারে ‘না’ করেছে।”

কামরুজ্জামান কামাল বলেন,”গুঁড়ো হলুদে সিসার পরিমাণ যাতে কমানো যায় সে ব্যাপারে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হবে।”