শীতের সবজিতে ত্বকচর্চা

শীতের সবজিতে ত্বকচর্চা

শীতকালে হাতের কাছে নানা রকম সবজি পাওয়া যায়। এসব সবজিতে রয়েছে ত্বকের উপকারী নান উপাদান। চাইলে এসব সবজি দিয়েই রূপচর্চা করতে পারেন। পরামর্শ দিয়েছেন অ্যারোমা থেরাপিস্ট- জুলিয়া আজাদ

শীতের সবজির মধ্যে সবচেয়ে যে সবজিটি আমাদের মন কাড়ে তা হলো টমেটো। লাল টুকটুকে পাকা টমেটো দেখতে যেমন সুন্দর তেমনি পুষ্টিগুণেও অপরিসীম। ত্বকের পুষ্টি জোগাতে, রোদেপোড়া কালোভাব দূর করতে মুখে কিংবা ঘাড়ে-গলায় লাগাতে পারেন টমেটো। লাগানোর ১০ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন। শীতকালে ত্বকে ক্রিমের বদলে টমেটো মাখলে অনেক উপকার পাবেন। টমেটোতে প্রচুর পরিমাণে এন্টিঅক্সিডেন্ট আছে। ফাইবারের পাশাপাশি টমেটোতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন। প্রতিদিন সবাইকে কোনো না কোনো কাজে বের হতে হয়। তাই গাড়ির ধোঁয়া, ধুলাবালি এবং সূর্যের আল্ট্রাভায়োলেট রশ্মিও সহ্য করতে হয় আমাদের। বেশির ভাগ সময় এসব কিছু থেকে ত্বককে রক্ষা করা আমাদের অনেকের পক্ষে সম্ভব হয় না। অথচ চাইলে খুব সহজেই এ সমস্যাগুলোর সমাধান করতে পারেন আপনার হাতের কাছে থাকা পাকা টমেটোর সাহায্যে। আর এতে খুব বেশি সময়ও লাগবে না। রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে অথবা সকালে ঘুম থেকে উঠে ১০ থেকে ১৫ মিনিট সময় ব্যয় করলেই আপনার ত্বকের অনেক সমস্যা খুব সহজে সমাধান হবে আপনারই হাতে।

শীতের ত্বক চর্চায় আর একটি উপকারি সবজি হলো বাঁধাকপি। এটি ক্লেনজার হিসেবে খুব ভালো কাজ করে। বাঁধাকপির রসের সঙ্গে কয়েক ফোঁটা মধু মিশিয়ে নিয়ে আপনার ত্বক পরিষ্কার করুন। এক টুকরা কটন এই রসে ডুবিয়ে ভিজিয়ে নিন। তারপর আলতো করে সার্কেল-এন্টি সার্কেল মুভমেন্টে এই রস দিয়ে আপনার মুখ, গলা, ঘাড় পরিষ্কার করে নর্মাল পানির ঝাপটা দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। দেখুন কত ভালো পরিষ্কার হলো আপনার ত্বক। এটি টোনার হিসেবেও ভীষণ ভালো কাজ দেয়। সে ক্ষেত্রে এর রস ফ্রিজে রেখে ঠা-া করে নিয়ে টোনার হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন।

রূপচর্চার অরেকটি সবজি হলো গাজর। দাগ-ছোপহীন উজ্জ্বল ত্বক পেতে আপনি গাজর যেমনি খেতে পারেন, তেমনি গাজর বেটে এক চিমটে হলুদ গুঁড়ার সঙ্গে ডিমের সাদা অংশ মিশিয়ে প্যাক বানিয়ে নিতে পারেন। মুখ পরিষ্কার করে এই প্যাক লাগিয়ে অন্য কাজ করতে পারেন কিংবা  বিশ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন। দেখবেন ভালো লাগবে। ভালো কাজ পেতে হলে সপ্তাহে অন্তত তিন দিন এই প্যাক ব্যবহার করতে পারেন।

মুলা দিয়েও ত্বক চর্চা করা যায়। আপনার ডাল স্কিনকে খুব ভালো ঝকঝকে করতে মুলার রস ব্যবহার করুন। বিশেষ করে যদি আপনার সানটেন্টের সমস্যা থাকে তো মুলার রস ব্যবহারে তা খুব তাড়াতাড়ি ঠিক হয়ে যাবে। যদি মুলার গন্ধ আপনার সহ্য না হয় তবে তার সঙ্গে কয়েক ফোঁটা গোলাপ জল মিশিয়ে ব্যবহার করতে পারেন।

আর যদি ত্বকে মেসতা সমস্যা থাকে তবে মুলার রস নিয়মিত এই দাগের জায়গায় লাগান। মেসতা হয়তো পুরোপুরি চলে যাবে না, তবে হালকা হতে সময়ও লাগবে না।

পাকা পেঁপে খুব ভালো ময়শ্চরাইজার। আপনার ত্বকের উজ্জ্বলতা যেমনি দেবে, তেমনি ত্বককে সুস্থ রাখতেও পাকা পেঁপে কাজ করে। পাকা পেঁপে দিয়ে যেমনি রূপচর্চা কারা যায়, তেমনি কাঁচা পেঁপে দিয়েও ত্বকের যতœ নেয়া যায়। কাঁচা পেঁপের আরেকটি গুণ হলোÑ কাঁচা পেঁপে সানটেন্ট হালকা করতে সাহায্য করে। পেঁপের খোসা ছাড়িয়ে বিচি ফেলে ছোট ছোট টুকরা দিয়ে পিষে নিন, এভাবে একটা বক্স ভরে ফ্রিজে রেখে দিন। এটা একদিন করে রাখলে মোটামুটি দুই সাপ্তাহ পর্যন্ত ভালো থাকবে। আপনার ত্বকে এই পেস্ট লাগিয়ে ১৫ থেকে ২০ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন। আপনার সানটেন্ট সারতে সময় লাগবে না। হাত-পায়ের কালোভাবও দূর করে দিতে পারে এই পেঁপে বাটা।

তবে রূপচর্চা যেভাবেই করুন, তা নিয়মিত করতে হবে। তাহলেই এর উপকারিতা পাওয়া যাবে।

সূত্রঃ আলোকিত বাংলাদেশ
#লাইফ ষ্টাইল, #খাবার দাবার, #স্বাস্থ্য, #স্বাস্থ্য ও ফিটনেস, স্বাস্থ্য ও ফিটনেস, স্বাস্থ্য, খাবার দাবার, লাইফ ষ্টাইল