৫ মাসে ইউক্রেনের পেছনে আফগানিস্তানে প্রথম ৫ বছরের চেয়ে বেশি খরচ করল আমেরিকা – Ekush.Info

পেন্টাগন জানিয়েছে, ফেব্রুয়ারিতে যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর থেকে নিরাপত্তা সহায়তা হিসেবে এখন পর্যন্ত ইউক্রেনকে আট বিলিয়ন ডলার সহায়তা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

একটি টি-৮০ ট্যাংকের সামনে পোজ দিচ্ছেন রাশিয়ান সেনারা। ছবি: ম্যাক্সিমিলিয়ান ক্লার্ক/এসওপিএ ইমেজেস/লাইটরকেট..   ২০২২ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি রাশিয়া ইউক্রেনের ওপর হামলা চালানোর পর থেকেই ইউক্রেনকে সহায়তা করে আসছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। অর্থ, অস্ত্র, গোয়েন্দা তথ্য ইত্যাদি নিয়মিত কিয়েভকে সরবরাহ করছে বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাধর এ দেশটি।

আর এখন পর্যন্ত যে পরিমাণ অর্থ ইউক্রেনকে সহায়তার জন্য যুক্তরাষ্ট্রকে খরচ করতে হয়েছে, তার পরিমাণ আফগানিস্তানে যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম পাঁচ বছরের খরচকে ছাড়িয়ে গিয়েছে।

২০০৬ সালের শেষ নাগাদ তালেবানদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে গিয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ৭.৪ বিলিয়ন ডলার খরচ করে। ২০১১ সালে সর্বোচ্চ ১১.৪ বিলিয়ন ডলার পর্যন্ত খরচ করেছিল যুক্তরাষ্ট্র।

শুক্রবার বাইডেন প্রশাসন ইউক্রেনকে সহায়তার অংশ হিসেবে আরও ৪০০ মিলিয়ন ডলারের আরেকটি সঙ্কুচিত সামরিক প্যাকেজ ঘোষণা করেছে।

সর্বশেষ এ প্যাকেজটি ইউক্রেনীয় সামরিক কর্তাদের চাহিদা অনুযায়ী সাজানো হয়েছে। পূর্বাঞ্চলীয় লুহানস্ক অঞ্চলে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের বিজয় ঘোষণার দিন কয়েক পরেই এ সাহায্য প্যাকেজ ঘোষণা করলো যুক্তরাষ্ট্র।

রাশিয়ান কমান্ড অ্যান্ড কন্ট্রোল সেন্টারগুলো রণক্ষেত্রের পশ্চাৎভাগে অবস্থান করে৷ এগুলো ধ্বংস করার জন্য হাউটজারের মতো ভারী আর্টিলারি ও হাই মবিলিটি আর্টিলারি রকেট সিস্টেম (এইচআইএমএআরএস) দরকার বলে জানিয়েছে ইউক্রেন।

শুক্রবার পেন্টাগন জানিয়েছে, ফেব্রুয়ারিতে যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর থেকে নিরাপত্তা সহায়তা হিসেবে এখন পর্যন্ত ইউক্রেনকে আট বিলিয়ন ডলার সহায়তা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। তবে ওয়াশিংটন আরও বেশি খরচের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

এ বছরের শুরুতে পুতিনকে ঠেকানোর জন্য মার্কিন কংগ্রেস গতানুগতিক বৈদেশিক সাহায্য ও সামরিক সহায়তা হিসেবে ইউক্রেনে ৫৪ বিলিয়ন ডলার খরচের সিদ্ধান্ত নেয়।

এ তহবিলগুলো স্বাভাবিক চ্যানেলের মাধ্যমে ইউক্রেনে পাঠানো হবে। এছাড়া ন্যাটোভুক্ত দেশ ও ইউরোপের বিভিন্ন দেশে থাকা মার্কিন বাহিনীকেও এসব তহবিলের আওতায় রাখা হবে।

এ সাহায্য তহবিলের বড় অংশ দ্রুতগতিতে এ বছর শেষ হওয়ার আগেই অভীষ্ট গ্রহীতাদের হাতে তুলে দেওয়া হবে।

তবে মে মাসে ঘোষণা করা ৪০ বিলিয়ন ডলারের প্যাকেজে এমন সব সাহায্য আছে যেগুলো কার্যকর করতে কয়েক বছর লেগে যেতে পারে। যেমন প্যাট্রিয়ট মিসাইলের বাড়তি ব্যাটারি সাহায্য, যা কিনা পোল্যান্ডের মতো কোনো মিত্র দেশে স্থাপন করা হতে পারে।

২০২২ সালে ইউক্রেনের জন্য যুক্তরাষ্ট্র কী পরিমাণ অর্থ খরচ করবে তা এখনো পরিষ্কার নয়। বাইডেন ও অন্যান্য পশ্চিমা নেতারা শপথ করেছেন তারা ‘যতদিন দরকার ততদিন’ ইউক্রেনকে সমর্থন করে যাবেন।
সূত্রঃ ফক্স নিউজ থেকে ভাষান্তর – টিবিএস নিউজ