৪র্থ অব জুলাই, আমেরিকার স্বাধীনতা দিবস

৪ জুলাই সোমবার যুক্তরাষ্ট্রের ২৪৭তম স্বাধীনতা দিবস। ২৪৬ বছর আগে ১৭৭৬ সালের এই দিনে ১৩টি উপনিবেশের কন্টিনেন্টাল কংগ্রেস স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র অনুমোদন করে। অবশ্য এর দুই দিন আগেই ২ জুলাই প্রতিনিধিরা ব্রিটেনের সঙ্গে সম্পর্কচ্ছেদ করে স্বাধীনতার পক্ষে ভোট দেন।
প্রতি বছর ৪ জুলাই জাঁকজমকপূর্ণভাবে দিবসটি উদ্যাপন করেন আমেরিকানরা। স্বাধীনতা দিবসের আয়োজনে স্ট্যাচু অব লিবার্টিকে বর্ণিল সাজে সাজানো হয়। এই স্ট্যাচু অব লিবার্টি যুক্তরাষ্ট্রের স্বাধীনতা ও গণতন্ত্রের প্রতীক।
স্বাধীনতা দিবসের উৎসবকে কেন্দ্র করে আয়োজন করা হয় বিশাল জনসমাবেশ, কুচকাওয়াজ এবং কনসার্ট। চোখ ধাঁধানো আতশবাজিও থাকে অন্যতম আকর্ষণ।
তবে, করোনা মহামারীসহ নানান কারণে আমেরিকার অর্থনীতির কিছুটা স্লথগতি চলছে। এই অবস্থায় দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতিতে স্বাধীনতা দিবস উদযাপনের ব্যয় বেড়েইে চলেছে। বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গেছে, চলতি বছর স্বাধীনতা দিবস উদযাপনের খরচ বেড়েছে প্রায় ৩৬ গুণ। ফলে এবারের উৎসবে, বিশেষ করে আতশবাজির ব্যবহার কিছুটা কমতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।
স্বাধীনতার জন্য জীবন দেন ২৫ হাজার আমেরিকান এবং ২৭ হাজার ব্রিটিশ ও জার্মান সেনা। ২৪৬ বছর আগে ১৭৭৬ সালের ২ জুলাই ইংল্যান্ডের শাসন থেকে পৃথক হওয়ার জন্য ভোট দেন আমেরিকার দ্বিতীয় কন্টিনেন্টাল কংগ্রেস। এর দুই দিন পর স্বাধীনতার ঘোষণাপত্রে চূড়ান্ত অনুমোদন দেয় কংগ্রেস। কিন্তু পৃথক হতে ব্রিটেনের সঙ্গে চূড়ান্ত স্বাক্ষর ২ আগস্ট হলেও, প্রতি বছর ৪ জুলাই স্বাধীনতা দিবস উদযাপন করে যুক্তরাষ্ট্র।
স্বাধীনতার প্রাক্কালে ১৩টি উপনিবেশ একসঙ্গে ইংল্যান্ডের রাজার বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ঘোষণা করে স্বাধীনতা সংগ্রাম শুরু করে। ভার্জিনিয়া উপনিবেশের জর্জ ওয়াশিংটন ছিলেন প্রধান সেনাপতি। এরই মধ্যে শুরু হয় স্বাধীনতা যুদ্ধ। আর সেই যুদ্ধে উপনিবেশগুলোর বিজয়ের প্রাক্কালে ১৭৭৬ সালের ২ জুলাই দ্বিতীয় কন্টিনেন্টাল কংগ্রেসে ভোটের মাধ্যমে স্বাধীনতা ঘোষণার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। এরপর পাঁচজনের একটি কমিটি স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র রচনা করে। এ কমিটির অন্যতম সদস্য ছিলেন টমাস জেফারসন, জন অ্যাডামস ও বেঞ্জামিন ফ্রাঙ্কলিন। তবে থমাস জেফারসন ছিলেন মূল লেখক। রচিত ঘোষণাপত্রটি নিয়ে কংগ্রেসে বিতর্ক শেষে ঘোষণাপত্রটি চূড়ান্ত করা হয়।
ঘোষণাপত্রটি কংগ্রেসের অনুমোদন পায় ১৭৭৬ সালের ৪ জুলাই। ব্রিটিশ অরাজকতা থেকে মুক্ত হতে ‘প্রতিটি মানুষই সমান এবং একই সৃষ্টিকর্তার সৃষ্টি’ এই বাণীকে সামনে রেখে টমাস জেফারসন লিখলেন স্বাধীনতার অমর বাণী।
যুক্তরাষ্ট্রের স্বাধীনতাযুদ্ধ মূলত শুরু হয় ১৭৭৫ সালে। আর তা চলে ১৭৮৩ সাল পর্যন্ত। যুদ্ধের শুরু হয় ব্রিটিশ বাহিনী ও উপনিবেশের স্থানীয় সশস্ত্র বাসিন্দাদের মধ্যে একটি ছোট খণ্ডযুদ্ধের মাধ্যমে। খণ্ডযুদ্ধটি সংঘটিত হয় ১৭৭৫ সালের ১৯ এপ্রিল। এই যুদ্ধের ফলে অন্যান্য স্থানেও সংঘাত ছড়িয়ে পড়ে। এতে ২৫০ জনের বেশি ব্রিটিশ সেনা হতাহত হয়। নিহত হয় ৯৩ জন বিপ্লবী আমেরিকান। বিদ্রোহ দমনে ব্রিটিশরা সেনা জমায়েত করে। আমেরিকার বিদ্রোহী সেনাদের বিরুদ্ধে তারা বিজয় অর্জন করে।
এদিকে বাংলাদেশি কমিউনিটি বিভিন্ন আয়োজনে আমেরিকার স্বাধীনতা দিবস উদযাপন করবে। শোটাইম মিউজিক আ্যান্ড প্লে (এসএমপি) ৪ জুলাই সোমবার সন্ধ্যায় উডসাইডের কুইন্স প্যালেসে আয়োজন করেছে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের। এদিন মূলধারার নেতা ও জনপ্রতিনিধিদের অংশগ্রহণে হবে আলোচনা সভা। এছাড়া সাংস্কৃতিক পর্বে সঙ্গীত পরিবেশন করবেন জনপ্রিয় সঙ্গীতশিল্পী তপন চৌধুরী, প্রবাসের জনপ্রিয় শিল্পী কৃষ্ণা তিথি, শাহ মাহবুব প্রমুখ।

৪র্থ অব জুলাই, আমেরিকার স্বাধীনতা দিবস