নতুন আয়কর আইনে নিরীক্ষা কার্যক্রম আগের চেয়ে আরও জটিল করা হয়েছে।

কোনো করদাতার কর নথি নিরীক্ষায় পড়লে সাতজন কর কর্মকর্তা তাঁর পিছে ছুটবেন। অর্থাৎ একজন করদাতার কর নথির ফাঁকি খুঁজতে সাতজন কর্মকর্তাকে সম্পৃক্ত হতে হবে।

এমনকি নিরীক্ষা কার্যক্রমের জন্য করদাতার তথ্য–উপাত্ত অনুসন্ধান করতে পারবেন না ওই করদাতার কর সার্কেলের কর্মকর্তারা। অন্য সার্কেল থেকে কর্মকর্তা আনতে হবে। আগের মতো দু-একজন কর্মকর্তা নিরীক্ষা করেই করের বিষয়ে সিদ্ধান্ত দিতে পারবেন না।

নতুন আয়কর আইনে এই ধরনের বিধান করা হয়েছে। নতুন আয়কর আইনটি গত জুলাই মাস থেকে কার্যকর করা হয়েছে। এই আইনে নিরীক্ষা কার্যক্রম আগের চেয়ে আরও জটিল হয়েছে।

নতুন আয়কর আইনের ১৮২ ধারায় নিরীক্ষা কার্যক্রম কীভাবে হবে, তা বলা হয়েছে। তবে আগের বছরের চেয়ে ১৫ শতাংশ বেশি আয় প্রদর্শন করা হলে করদাতা ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের নিরীক্ষা করা যাবে না।

আগে যেকোনো কমিশনারেটের উপ–কর কমিশনারেরা নিরীক্ষা কার্যক্রম চালাতে পারতেন। এই নিরীক্ষা করার প্রক্রিয়া ছিল করদাতার কর নথিকেন্দ্রিক। এখন নিরীক্ষা কার্যক্রম হবে নিরীক্ষা দলকেন্দ্রিক। প্রতিটি কমিশনারেটে খাতভিত্তিক নিরীক্ষা দল থাকবে। যেমন ভ্রমণ এজেন্ট, ওষুধ কোম্পানি, চিকিৎসক, প্রকৌশলী ইত্যাদি।

কীভাবে নিরীক্ষা হবে

একজন করদাতার কর নথি নিরীক্ষায় পড়লে অন্তত সাতজন কর কর্মকর্তা ফাঁকি ধরতে নেমে পড়বেন।

প্রথমেই ওই কমিশনারেটের কর কমিশনার করদাতার তথ্য অনুসন্ধানের জন্য কমপক্ষে দুই সদস্যের একটি অনুসন্ধান দল গঠন করবেন। দুজন কর পরিদর্শকের সমন্বয়ে গঠিত হবে এই দল। এই দল করদাতার আয়-ব্যয়, সম্পদ, লেনদেনসহ যাবতীয় তথ্য সংগ্রহ করে ৬০ দিনের মধ্যে একটি অনুসন্ধান প্রতিবেদন জমা দেবেন।

কর কমিশনার পরে সেই অনুসন্ধান প্রতিবেদন নিরীক্ষার জন্য নিরীক্ষা দলের কাছে পাঠাবেন। এই নিরীক্ষা দল গঠিত হবে কমপক্ষে দুজন উপ কমিশনারের সমন্বয়ে এবং কর কমিশনার দলটি গঠন করবেন।

নিরীক্ষা দল নির্দিষ্ট ওই করদাতার যাবতীয় আয়-ব্যয়, সম্পদ, জীবনযাত্রার তথ্য যাচাই–বাছাই করে ৬০ দিনের মধ্যে একটি প্রতিবেদন প্রস্তুত করবে। খসড়া নিরীক্ষা প্রতিবেদনটি ওই করদাতার কাছে পাঠিয়ে ব্যাখ্যা চাইবে নিরীক্ষা দল।

নিরীক্ষা দলটি তাদের প্রতিবেদন চূড়ান্ত করে কর কমিশনারের কাছে জমা দেবে। এরপর কর কমিশনার প্রতিবেদনটি অডিট কিউরেটরের কাছে পাঠাবেন। একজন যুগ্ম কর কমিশনার বা অতিরিক্ত কর কমিশনার অডিট কিউরেটরের দায়িত্ব পালন করবেন। অডিট কিউরেটর নিরীক্ষা প্রতিবেদনটি পরীক্ষা করে দেখবেন এবং এ বিষয়ে মতামত দিয়ে তা ওই করদাতার সংশ্লিষ্ট উপ–কর কমিশনারের কাছে পাঠাবেন।

এরপর ওই উপ–কর কমিশনার সাত দিনের মধ্যে অডিট কিউরেটরের সুপারিশের ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবেন। সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, ওই করদাতাকে নিরীক্ষা ফলাফলের বিস্তারিত জানিয়ে সংশোধিত রিটার্ন দাখিল এবং প্রাপ্য কর পরিশোধের নির্দেশ দেবেন।

জেএনজে অ্যাসোসিয়েটসের কর আইনজীবী সোহেল রানা প্রথম আলোকে বলেন, এখন অডিটের ধাপগুলো বেড়ে যাওয়ার ফলে হয়রানি বাড়তে পারে। এর ফলে করদাতার সঙ্গে কর কর্মকর্তাদের যোগাযোগের সম্ভাবনা বাড়বে।

বর্তমানে ৯০ লাখ কর শনাক্তকরণ নম্বরধারী (টিআইএন) আছেন। তাঁদের মধ্যে বছরে ৩০ লাখের মতো টিআইএনধারী রিটার্ন দেন। প্রতিটি কর সার্কেলে জমা করা রিটার্নের ৫ শতাংশ দৈবচয়ন ভিত্তিতে নিরীক্ষা করে থাকে। সূত্রঃ প্রথম আলো অনলাইন

কর নির্ধারণ ও অডিট

অডিট

১৮২। (১) বোর্ড বা বোর্ডের অনুমোদনক্রমে অধীনস্থ কোনো কর্তৃপক্ষ, বোর্ড কর্তৃক নির্ধারিত পদ্ধতিতে, ধারা ১৮০ এর অধীন দাখিলকৃত রিটার্ন বা সংশোধিত রিটার্ন হইতে অডিটের জন্য রিটার্ন নির্বাচন করিতে পারিবে এবং অডিটের উদ্দেশ্যে উহা সংশ্লিষ্ট কর কমিশনারের নিকট প্রেরণ করিবে।

(২) অডিটের জন্য নির্বাচিত রিটার্নের তালিকা প্রাপ্তির দিন হইতে অনধিক ৭ (সাত) কর্মদিবসের মধ্যে কর কমিশনার, আদেশ দ্বারা, প্রতিটি অডিট মামলার জন্য অনুসন্ধানকারী টিম, অডিট টিম এবং অডিট কিউরেটর নিযুক্ত করিবেন এবং এইরূপ আদেশ স্বাক্ষরের দিনে সংশ্লিষ্ট সকল অনুসন্ধানকারী টিম, অডিট টিম, অডিট কিউরেটর এবং উপকর কমিশনারকে প্রেরণ করিবেন।

(৩) উপকর কমিশনার, উপ-ধারা (২) এর অধীন জারীকৃত আদেশ প্রাপ্তির অনধিক ৭ (সাত) কর্মদিবসের মধ্যে, সংশ্লিষ্ট করদাতাকে অডিট সম্পর্কে অবহিতকরণের লক্ষ্যে একটি নোটিশ জারি করবেন এবং এইরূপ নোটিশের অনুলিপি সংশ্লিষ্ট অনুসন্ধানকারী টিমের নিকট প্রেরণ করিবেন।

(৪) প্রতিটি অনুসন্ধানকারী টিম-

(ক) অনুসন্ধান পরিচালনাপূর্বক করদাতার আয়, ব্যয়, পরিসম্পদ, দায়, লেনদেন, আর্থিক বিবৃতি ও অন্যান্য রেকর্ড, পাবলিক রেকর্ড, এবং করদাতার সহিত সংশ্লিষ্ট পক্ষের তথ্য, ইত্যাদি সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহ করিবে;

(খ) করদাতার আয়ের উৎসের অস্তিত্ব এবং উহার প্রকৃতির বিস্তারিত যাচাইকরণ এবং নিশ্চিতকরণসহ একটি অনুসন্ধান প্রতিবেদন অডিট কিউরেটরের নিকট দাখিল করিবে;

(গ) উপ-ধারা (৩) এর অধীন প্রেরিত নোটিশ প্রাপ্ত হইবার অনধিক ৬০ (ষাট) দিনের মধ্যে অনুসন্ধান প্রতিবেদন সংশ্লিষ্ট উপকর কমিশনারের নিকট দাখিল করিবে এবং এইরূপ প্রতিবেদনের একটি অনুলিপি অডিট কিউরেটর বরাররে দাখিল করিবে; এবং

(ঘ) দফা (গ)-তে বর্ণিত সময়সীমার মধ্যে প্রতিবেদন দাখিল করিতে ব্যর্থ হইলে সংশ্লিষ্ট উপকর কমিশনার বরাবর সময় বৃদ্ধির আবেদন করিতে পারিবে এবং সংশ্লিষ্ট উপকর কমিশনার অনধিক ৬০ (ষাট) দিন পর্যন্ত সময় বৃদ্ধি করিতে পারিবেন।

(৫) অনুসন্ধান প্রতিবেদন দাখিলের পর, অডিট টিম বোর্ড কর্তৃক প্রস্তুতকৃত অডিট ম্যানুয়াল এবং নির্দেশিকা অনুসরণ করিয়া অডিট কার্যক্রম পরিচালনা করিবে, এবং

(ক) এই আইন এবং প্রাসঙ্গিক অন্যান্য আইনের অধীন প্রযোজ্য সকল বিধানের পরিপালন পরীক্ষা করিবেন;

(খ) মাঠ পরিদর্শনের মাধ্যমে নিম্নবর্ণিত কার্যাদি সম্পাদন করিবে, যথা:-

(অ) করদাতা কর্তৃক কোনো দাবি বা দাখিলকৃত কোনো তথ্য যাচাই;

(আ) হিসাবের বহি, প্রাপ্তি ও পরিশোধ সংক্রান্ত দলিলাদি, ক্রয়-বিক্রয় সংক্রান্ত চুক্তি ও অন্যান্য দলিলাদি, যেকোনো প্রমাণক, ক্লায়েন্ট, গ্রাহক বা সরবরাহকারী কর্তৃক ইস্যুকৃত বা প্রাপ্ত অন্যান্য তথ্যাদি সংগ্রহ ও যাচাই;

(ই) করদাতা কর্তৃক নিয়োজিত অ্যাকাউন্টিং এবং ম্যানেজমেন্ট ইনফরমেশন সিস্টেম সম্পর্কে একটি ধারণা অর্জন;

(ঈ) অন্যান্য সংশ্লিষ্ট প্রমাণাদি, উহা যে প্রকৃতির বা ধরনের হউক, সংগ্রহ;

(গ) আয়, ব্যয়, পরিসম্পদ বা দায় সম্পর্কিত কোনো বিবৃতি বা রেকর্ড পরীক্ষা করিবে;

(ঘ) লেনদেনের প্রকৃতি এবং সত্যতা পরীক্ষা করিবে;

(ঙ) উপ-ধারা (৪) এর অধীনে দাখিলকৃত অনুসন্ধান প্রতিবেদনটি পুনরায় যাচাই করিবে;

(চ) করদাতার সহিত সম্পর্ক আছে বা থাকিতে পারে এইরূপ যেকোনো ব্যক্তির সাক্ষাৎকার গ্রহণ করিবে;

(ছ) কোনো তথ্য ও পরিসংখ্যান সম্পর্কে লিখিত বিবৃতি জমা দেওয়ার জন্য করদাতাকে নির্দেশ প্রদান করিবে;

(জ) সংশ্লিষ্ট সমূদয় তথ্য, বাজার তথ্য, আর্থিক তথ্য এবং, প্রযোজ্য ক্ষেত্রে, করদাতার জীবনযাত্রার তথ্য সংগ্রহ এবং বিশ্লেষণ করিবে।

(৬) অডিট টিম খসড়া অডিট প্রতিবেদন করদাতার বরাবর প্রেরণ করিবে এবং তাহার নিকট হইতে লিখিত ব্যাখ্যা গ্রহণ করিবে।

(৭) অডিট টিম উপ-ধারা (৪) এর অধীন অনুসন্ধান প্রতিবেদন জমা দেওয়ার তারিখ হইতে অনধিক ৩০০ (তিনশত) দিনের মধ্যে অডিট কিউরেটরের নিকট অডিট প্রতিবেদন জমা দিবেন এবং প্রতিবেদনে নিম্নবর্ণিত বিষয়গুলি অন্তর্ভুক্ত থাকিবে-

(ক) অডিট টিমের প্রতিবেদনসহ করদাতার আয়ের উৎস, পরিসম্পদ ও দায় এবং উহার প্রকৃতি বিস্তারিত যাচাইকরণ এবং নিশ্চিতকরণ সংক্রান্ত একটি বিবৃতি;

(খ) এই আইনের সকল প্রযোজ্য বিধানাবলি পরিপালন সংক্রান্ত বিবৃতি;

(গ) আইনের বিধানাবলির পরিপালনার্থে উন্নতির ক্ষেত্রসমূহ এবং, প্রযোজ্য ক্ষেত্রে, করদাতার অভ্যন্তরীণ নিয়ন্ত্রণের উপর মন্তব্য।

(৮) অডিট কিউরেটর, অডিট টিম কর্তৃক প্রতিবেদন জমা দানের অনধিক ৭ (সাত) কর্মদিবসের মধ্যে-

(ক) নিম্নবর্ণিত বিষয়ে সন্তুষ্ট হইয়া কর কমিশনারের নিকট অডিট কার্যক্রম সমাপ্ত করিবার জন্য সুপারিশ করিবেন, যথা:-

(অ) প্রাপ্ত অডিট প্রতিবেদন অনুসারে এই আইনের পরিপালন এবং করদাতার আয়, ব্যয় ও পরিসম্পদ সংক্রান্ত সকল তথ্যাদি করদাতার রিটার্নে বা সংশোধিত রিটার্নে যথাযথভাবে প্রতিফলিত হইয়াছে; এবং

(আ) করদাতা হইতে অতিরিক্ত কোনো করদাবির সুযোগ নাই;

(খ) অডিট কার্যক্রম সম্পন্নের জন্য উপকর কমিশনারকে অনুমোদন প্রদান করিবেন যদি প্রাপ্ত অডিট প্রতিবেদন হইতে প্রতীয়মান হয় যে-

(অ) প্রাপ্ত অডিট প্রতিবেদন অনুসারে এই আইনের পরিপালন এবং করদাতার আয়, ব্যয় ও পরিসম্পদ সংক্রান্ত সকল তথ্যাদি করদাতার রিটার্নে বা সংশোধিত রিটার্নে যথাযথভাবে প্রতিফলিত হয় নাই; বা

(আ) করদাতার বিরুদ্ধে অন্য কোনো কার্যধারা গৃহীত হওয়া উচিত।

(৯) কর কমিশনার, অডিট কিউরেটরের নিকট হইতে সুপারিশ প্রাপ্তির পর, মামলাটি বিবেচনা করিবেন এবং সুপারিশ প্রাপ্তির তারিখ হইতে অনধিক ৭ (সাত) কর্মদিবসের মধ্যে উপযুক্ত সিদ্ধান্ত প্রদান করিবেন।

(১০) উপকর কমিশনার, অডিট কিউরেটরের নিকট হইতে অনুমোদন প্রাপ্তির পর অনধিক ৭ (সাত) কর্মদিবসের মধ্যে-

(ক) করদাতার নিকট অডিট প্রতিবেদন প্রেরণ করিবেন এবং একটি নোটিশ প্রেরণ করিবেন যাতে করদাতাকে অডিটের ফলাফল প্রতিফলিত করিয়া একটি সংশোধিত রিটার্ন দাখিল করিবার নির্দেশ দেওয়া হইবে, এবং সংশোধিত রিটার্ন দাখিল করিবার তারিখে বা তৎপূর্বে সংশোধিত রিটার্নের উপর ভিত্তি করিয়া নির্ধারিত করদায় এবং অন্যান্য প্রযোজ্য অঙ্ক পরিশোধ করিবার নির্দেশ প্রদান করিবেন; এবং

(খ) অডিট কিউরেটর কর্তৃক প্রদত্ত নির্দেশনা মোতাবেক অন্য কোনো কার্যধারা পরিচালনা করিবেন।

(১১) করদাতা কর্তৃক সংশোধিত রিটার্ন দাখিল হইলে উপকর কমিশনার যদি এই মর্মে সন্তুষ্ট হন যে, অডিট প্রতিবেদনে উল্লিখিত ফলাফলগুলি সংশোধিত রিটার্নে যথাযথভাবে প্রতিফলিত হইয়াছে এবং উপ-ধারা (১০) এর বিধান অনুসারে করদায় এবং অন্যান্য প্রযোজ্য অঙ্ক সম্পূর্ণরূপে পরিশোধ করা হইয়াছে, তাহা হইলে তিনি সংশোধিত রিটার্ন গ্রহণ করিবেন এবং অডিট নিষ্পন্ন হইয়াছে মর্মে করদাতার নিকট একটি পত্র প্রেরণ করিবেন।

(১২) যেইক্ষেত্রে উপ-ধারা (১০) এর অধীন নোটিশ প্রদানের পর কোনো সংশোধিত রিটার্ন দাখিল করা হয় নাই বা যে সংশোধিত রিটার্ন দাখিল করা হইয়াছে তাহাতে অডিটের ফলাফলগুলি প্রতিফলিত হয় নাই, বা উপ-ধারা (১০) এর বিধান পরিপালন পূর্বক কর বা অন্যান্য প্রযোজ্য অঙ্ক পরিশোধ করা হয় নাই, সেইক্ষেত্রে উপকর কমিশনার ধারা ১৮৩ বা ১৮৪, যেটি প্রযোজ্য, এর অধীন কর নির্ধারণ করিতে পারিবেন।

(১৩) উপ-ধারা (১২) এর অধীন কোনো প্রকার কর নির্ধারণ করা যাইবে না যদি না-

(ক) অনুসন্ধান এবং অডিট পর্যায় শেষ হয়;

(খ) করদাতাকে অডিট প্রতিবেদন অবহিত করা হয়; এবং

(গ) উপ-ধারা (১০) এর অধীন প্রেরিত নোটিশ পরিপালন করিয়া করদাতা সংশোধিত রিটার্ন দাখিল করিতে ব্যর্থ হন; বা উপ-ধারা (১০) এর অধীন প্রেরিত নোটিশ পরিপালন করিয়া করদাতা সংশোধিত রিটার্ন দাখিল করেন কিন্তু অডিটের ফলাফলগুলি যথাযথভাবে প্রতিফলন করিতে ব্যর্থ হন এবং অডিটের ফলাফল অনুসারে কর এবং অন্যান্য প্রযোজ্য অঙ্ক পরিশোধ করিতে ব্যর্থ হন।

(১৪) ধারা ১৮০ এর অধীন দাখিলকৃত কোনো রিটার্ন বা সংশোধিত রিটার্ন, উপ-ধারা (১) এর অধীনে অডিটের জন্য নির্বাচন করা হবে না, যদি-

(ক) ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের রিটার্ন ব্যতীত অন্যান্য রিটার্ন বা সংশোধিত রিটার্ন যাহা অব্যবহিত পূর্ববর্তী করবর্ষের মোট আয় হইতে অন্যূন ১৫% (পনেরো শতাংশ) অধিক মোট আয় প্রদর্শন করে; এবং

(খ) এইরূপ রিটার্ন বা সংশোধিত রিটার্ন নিম্নবর্ণিতভাবে দাখিল করা হয়, যথা:-

(অ) কর অব্যাহতিপ্রাপ্ত আয়ের সমর্থনকারী সাক্ষ্য (corroborative evidence);

(আ) সংশ্লিষ্ট বৎসরে দান গ্রহণ ব্যতীত;

(ই) ধারা ৭৬ এর অধীন কর অব্যাহতি প্রাপ্ত আয় প্রদর্শন ব্যতীত; বা

(ঈ) কোনো প্রত্যর্পণ দাবি ব্যতীত; এবং

(গ) করদাতা ধারা ১৭৭ এর অধীন রিটার্ন দাখিল এবং অংশ ৭ এর বিধানাবলী পরিপালন করেন।

(১৫) এই ধারার অধীন অডিটের উদ্দেশ্যপূরণকল্পে,-

(ক) কর কমিশনার নিম্নবর্ণিতরূপে টিম গঠন করিবেন-

(অ) যেকোনো সংখ্যক অডিট টিম গঠন এবং প্রতিটি অডিট টিম অন্যূন ২ (দুই) জন অডিটরের সমন্বয়ে গঠিত হইবে;

(আ) যেকোনো সংখ্যক অনুসন্ধানকারী টিম গঠন এবং প্রতিটি অনুসন্ধানকারী টিম অন্যূন ২ (দুই) জন কর পরিদর্শকের সমন্বয়ে গঠিত হইবে;

(খ) অডিটের জন্য নির্বাচিত করদাতা যেই উপকর কমিশনার এবং কর পরিদর্শকের অধিক্ষেত্রাধীন নিবন্ধিত সেই উপকর কমিশনার এবং কর পরিদর্শক যথাক্রমে উক্তরূপ করদাতার নিযুক্ত অডিট টিম এবং অনুসন্ধানকারী টিমের অন্তর্ভুক্ত হইবেনা;

(গ) কোনো অডিট টিম, প্রয়োজন অনুসারে বা উপযুক্ত বিবেচনা করিলে বিশেষজ্ঞ বা পেশাদার মূল্যায়নকারীর নিকট হইতে সহায়তা নিতে পারিবে;

(ঘ) রিটার্ন দাখিলের ৬০ (ষাট) দিন পূর্ণ হইবার পূর্বে উপ-ধারা (১) এর অধীনে রিটার্ন নির্বাচন করা যাইবে না;

(ঙ) এই ধারার অধীন সমস্ত প্রক্রিয়া এবং কার্যধারা উপ-ধারা (৩) এর অধীনে নোটিশ জারির মাস হইতে ২৪ (চব্বিশ) মাসের মধ্যে সম্পন্ন করিতে হইবে;

(চ) এই ধারার অধীনে প্রস্তুতকৃত এবং দাখিলকৃত সমস্ত প্রতিবেদন দলের সকল সদস্য দ্বারা স্বাক্ষরিত হইবে;

(ছ) ” ১৫% (পনেরো শতাংশ) অধিক মোট আয় ” পরিগণনায়, ধারা ১৮০ এর অধীন দাখিলকৃত রিটার্নে প্রদর্শিত যে সকল আয়ের উৎস অব্যবহিত পূর্ববর্তী করবর্ষে বিদ্যমান কেবল তাহা বিবেচনা করা হইবে;

(জ) আয়কর কর্তৃপক্ষ হইতে মর্যাদায় সহকারী কর কমিশনারের নিম্নে নহেন এইরূপ উপকর কমিশনারগণ হইতে অডিটর নির্বাচন করিতে হইবে;

(ঝ) “অডিট কিউরেটর”,-

(অ) কর কমিশনার কর্তৃক তাহার অধীনস্থ অতিরিক্ত কর কমিশনার বা যুগ্মকর কমিশনার হইতে নির্বাচিত হইবেন; এবং

(আ) এই ধারার অধীনে নির্বাচিত অডিট মামলা নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে নিষ্পত্তি, অডিট পঞ্জিকা প্রণয়ন, অডিট পরিকল্পনা প্রণয়নসহ অডিট কার্যক্রম ব্যবস্থাপনার জন্য মূল ব্যক্তি হইবেন; এবং

(ই) এই ধারার সকল অভিপ্রায় ও উদ্দেশ্যে কর কমিশনারের নিকট দায়ী থাকিবেন।
http://bdlaws.minlaw.gov.bd/act-1429/section-52012.html