শিশুদের মোবাইল আসক্তি, ক্ষতি হচ্ছে মস্তিষ্কের – Ekush.Info

এম এ জি ওসমানী মেডিক্যাল কলেজের অবসরপ্রাপ্ত শিশু-বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক যোগীন্দ্র সিংহ জানান, নিঃসন্দেহে ডিজিটাল প্রযুক্তি তথা মোবাইল ফোন, ট্যাব, ল্যাপটপ এসব ডিভাইস সৃজনশীল এবং সুবিধাজনক। কিন্তু শিশুদের জন্য এটি বেশ বিপদজনক। এর মাত্রাতিরিক্ত ব্যবহার অর্থাৎ অত্যধিক স্ক্রিন টাইম শৈশবের সামাজিক এবং মানসিক বিকাশের ওপর ভীষণ ক্রমবর্ধমান বিরূপ প্রতিক্রিয়া ও প্রভাব ফেলে।স্কুলপড়ুয়া শিশুরা আসক্ত হয়ে পড়ছে মোবাইল গেম ও কার্টুনে। বিশ্বের অন্যান্য দেশের পাশাপাশি বাংলাদেশেরও বর্তমান চিত্র এমনই। এক্ষেত্রে পিছিয়ে নেই মৌলভীবাজারের শিশুরা।

জেলার বিভিন্ন উপজেলার প্রাথমিক স্কুলগুলো পর্যবেক্ষণ করে এমন চিত্র দেখা মিলে। বিশেষ করে শিশু শ্রেশির শিক্ষার্থীদের মাঝে এ সমস্যাটি যেন প্রবল আকার ধারণ করেছে। তবে শিশু শ্রেণির ছেলে-মেয়েরা শুধু নয়, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকের ছাত্র-ছাত্রীরা স্মার্টফোনের গেমে আসক্ত বেশি।

বৃহস্পতিবার জেলার কমলগঞ্জ উপজেলার রানীবাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় বারান্দায় শিশু শ্রেণির তিন শিক্ষার্থীকে মোবাইল হাতে ব্যস্ত থাকতে দেখা যায়।

কয়েকজন অভিভাবক ক্ষোভ প্রকাশ করে জানান, এখন শিক্ষার্থীদের পাঠ্যবই নিয়ে ব্যস্ত থাকার কথা। কিন্তু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও শিক্ষাক্ষেত্রে ডিজিটাল ও তথ্যপ্রযুক্তির ছোঁয়া লেগেছে। অথচ তথ্যপ্রযুক্তির এ যুগে শিক্ষার্থীরা জড়িয়ে পড়ছে গেমসের নেশায়। উঠতি বয়সের তরুণ প্রজন্ম প্রতিনিয়ত মোবাইল ফোনের মাধ্যমে গেম খেলায় আসক্ত হচ্ছে বেশি।

এসব থেকে ছেলে-মেয়েকে ফিরিয়ে আনতে না পারলে ভবিষ্যতে বড় ধরণের সামাজিক ক্ষতির আশঙ্কা রয়েছে বলেও তারা মনে করেন।

কমলগঞ্জ সরকারি মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রনেন্দ্র কুমার দেব বলেন, ‘অনলাইন ক্লাসের অজুহাতে অসচ্ছল পরিবারের সন্তানরাও অনেক দামি ফোন কিনছে। ছেলেমেয়ের শিক্ষার বিষয়টি বিবেচনা করে অভিভাবকরাও ধারদেনা করে ফোন কেনার টাকা জোগাচ্ছেন। অথচ অধিকাংশ শিক্ষার্থী পরিবারের মোটা অঙ্কের টাকা খরচ করে গেমসের সরঞ্জাম কিনছে। শিশুরা যেখানে টাকা জমিয়ে ক্রিকেট বল, ফুটবল কেনার কথা, সেখানে তারা টাকা জমিয়ে রাখছে এসব কেনার জন্য।’

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সপ্তম শ্রেণির এক শিক্ষার্থী বলেন, ‘ফ্রি ফায়ার গেমস প্রথমে তার ভালো লাগত না। কিছুদিন বন্ধুদের দেখাদেখি খেলতে গিয়ে এখন আসক্ত হয়ে গিয়েছি। এখন গেমস না খেললে অস্বস্তি লাগে।’

কমলগঞ্জ সরকারি গণ মহাবিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ কামরুজ্জামান মিয়া বলেন, ‘অনলাইন ক্লাসের অজুহাতে অভিভাবকদের কাছ থেকে অ্যান্ড্রয়েড ফোন শিক্ষার্থীদের হাতে যাওয়া এবং অভিভাবকদের নিয়ন্ত্রণ না থাকায় এমন পরিস্থিতি এমন হয়েছে।’

সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ থেকে সদ্য অবসরপ্রাপ্ত শিশু-বিশেষজ্ঞ ডাক্তার অধ্যাপক যোগীন্দ্র সিংহ নিউজবাংলাকে জানান, নিঃসন্দেহে ডিজিটাল প্রযুক্তি তথা মোবাইল ফোন, ট্যাব, ল্যাপটপ- এসব ডিভাইস সৃজনশীল এবং সুবিধাজনক। কিন্তু শিশুদের জন্য এটি বেশ বিপদজনক। এর মাত্রাতিরিক্ত ব্যবহার অর্থাৎ, অত্যধিক স্ক্রিন টাইম শৈশবের সামাজিক এবং মানসিক বিকাশের ওপর ভীষণ রকম বিরূপ প্রতিক্রিয়া ও প্রভাব ফেলে। বাস্তব জীবনে, যেসব শিশু এসবে আসক্ত, তারা বিভিন্ন ধরনের শারীরিক ক্রিয়াকলাপ যেমন: খেলাধুলা, দৌঁড়ানো বা সাইকেল চালানো মিস করে। ফলে তাদের দক্ষতার বিকাশ বাধাগ্রস্ত হয়।

তিনি বলেন, ‘মনোনিবেশ করার ও বাস্তব জীবনে কার্যকরভাবে যোগাযোগ করার ক্ষমতাকে বাধাগ্রস্ত করতে পারে এ ধরনের আসক্তি। তাই শিশুর স্ক্রিন টাইম নিয়ন্ত্রণ করতে এবং তাদের চোখের বিশ্রামের জন্য স্ক্রিন থেকে পর্যাপ্ত সময় বিরতি নিতে উপদেশ দিতে হবে। টিভি, মোবাইল গেম বা যে কোনো ধরনের ভার্চুয়াল এন্টারটেইনমেন্ট দেখার সময় আমাদের মস্তিষ্কের কোষ থেকে ডোপামিন নিউরোট্রান্সমিটার বের হয়। এ ডোপামিন আমাদের মনে এক ভালোলাগার অনুভূতি সঞ্চার করে। তার ফলে অতি সহজেই আমরা এ ধরণের এন্টারটেইনমেন্ট মিডিয়ামগুলোতে (বিনোদনের মাধ্যম) আসক্ত হয়ে পড়ি।’

সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মনরোগ বিভাগের প্রধান ডাক্তার আর কে এস রয়েল বলেন, ‘মোবাইল ফোন শিশুদের মস্তিষ্কের বড় ক্ষতি করে। এ বিষয়ে মনরোগ বিভাগের মাধ্যমে অভিভাবকদের মাঝ সচেতনতামূলক আলোচনা করার উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে।’